বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বক্তারা অবিলম্বে লাখুহাটি ফটিকখালী সেতু নির্মাণের কাজ দ্রুত শুরু করার দাবি জানান। অন্যথায় তাঁরা আরও কঠিন আন্দোলন কর্মসূচির হুঁশিয়ারি দেন।

স্থানীয় শিক্ষক মো. খায়রুল ইসলামসহ অন্তত পাঁচজন এলাকাবাসী প্রথম আলোকে বলেন, কিশোরগঞ্জ থেকে হোসেনপুর–গোবিন্দপুর যাওয়ার গুরুত্বপূর্ণ সড়কটির সেতুটি প্রায় এক বছর আগে ভেঙে পড়ে। প্রায় ছয় মাস আগে ভাঙা সেতুটি সরিয়ে নিয়ে নতুন সেতু নির্মাণের পরিকল্পনা করা হয়।

সেখানে তৈরি করা হয় অস্থায়ী একটি বাঁশের সাঁকো। সেই সাঁকো দিয়ে দীর্ঘদিন ধরে ঝুঁকি নিয়ে হোসেনপুর উপজেলার গোবিন্দপুর, পুমদি, জিনারী ও সিদলা ইউনিয়নের লাখুহাটি, গাংগাটিয়া, সৈয়দপুর, পুমদি, গোবিন্দপুর, কেশেরা, সিদলা, ডাংরি, সুরাটি, হাজীপুর, জিনারী ও আমান সরকারের গ্রামের অন্তত লক্ষাধিক মানুষ পারাপার হচ্ছে। এ ছাড়া সেতু না থাকায় যানবাহন চলাচল না করায় এলাকার কয়েকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-শিক্ষার্থীসহ স্থানীয় কৃষকদের ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। তাই তাঁরা দ্রুত সেতুটি নির্মাণে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সহযোগিতা কামনা করেন।

স্থানীয় গোবিন্দপুর ইউপির চেয়ারম্যান মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, দীর্ঘদিন ধরে গুরুত্বপূর্ণ এ সড়কে সেতু না থাকায় লোকজনের অনেক ভোগান্তি হচ্ছে। মানুষের দুর্ভোগ লাঘবে তিনি এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখছেন, যাতে দ্রুত এর একটা ব্যবস্থা করা হয়।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন