বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন সেনাসদরের প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসাররা, জিওসি আর্মি ট্রেনিং অ্যান্ড ডকট্রিন কমান্ড এবং অন্যান্য জ্যেষ্ঠ সামরিক কর্মকর্তা।

পরে সেনাবাহিনী প্রধান জামালপুর সদর উপজেলার হরিণাকান্দা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে প্রায় দুই হাজার দরিদ্র ও অসহায় মানুষের মধ্যে কম্বল বিতরণ করেন।

এর আগে গত রোববার সেনাসদর ফিল্ড কমান্ড পোস্টে চলমান অভিযানের অগ্রগতির ওপর সেনাপ্রধানকে বিস্তারিত ব্রিফ করেন সেনাবাহিনীর চিফ অব জেনারেল স্টাফ লেফটেন্যান্ট জেনারেল আতাউল হাকিম সারওয়ার হাসান, এসবিপি, এসজিপি, এনডিসি, এএফডব্লিউসি, পিএসসি, পিএইচডি এবং লজিস্টিকস কর্মকাণ্ডের ওপর ব্রিফ করেন কোয়ার্টার মাস্টার জেনারেল লেফটেন্যান্ট জেনারেল মো. সাইফুল আলম, এসবিপি, ওএসপি, এসইউপি, এডব্লিউসি, পিএসসি, পিএইচডি। এ সময় ডিফেন্স জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের সাংবাদিকেরা এবং অন্যান্য গণমাধ্যমের কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। পরে আর্মি ফিল্ড হেডকোয়ার্টার ‘মিডিয়া সেল’–এ শীতকালীন প্রশিক্ষণের ওপর প্রেস ব্রিফিং শেষে গণমাধ্যমকর্মীদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন সেনাপ্রধান।

গত ১৯ ডিসেম্বর শীতকালীন প্রশিক্ষণের উদ্দেশ্যে সেনাসদর ও সেনাবাহিনীর সব ফরমেশন পূর্ণাঙ্গ রূপে নিজ নিজ দায়িত্বপূর্ণ এলাকায় মোতায়েন করা হয়। স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তিতে এবার বাংলাদেশ সেনাবাহিনী প্রথমবারের মতো লজিস্টিকস ফিল্ড ট্রেনিং এক্সারসাইজ পরিচালনা করে। সাম্প্রতিক কালে আহরিত অস্ত্র ও সরঞ্জাম এবারের অনুশীলনে ব্যবহৃত হয় এবং সেনাবাহিনীর লজিস্টিকস স্থাপনাগুলো প্রথমবারের মতো বহিরঙ্গনে মোতায়েন হয়। সব মিলিয়ে সেনাবাহিনীর এবারের শীতকালীন প্রশিক্ষণ ছিল অনেক অভিনব ও বাস্তবধর্মী। সেনাবাহিনীর সব সদস্য ব্যাপক উৎসাহ ও উদ্দীপনা নিয়ে এ শীতকালীন অনুশীলনে অংশগ্রহণ করেন।

প্রশিক্ষণের পাশাপাশি সম্ভাব্য সব ক্ষেত্রেই জনগণের পাশে দাঁড়ায় সেনাবাহিনী। বাস্তবসম্মত ও যুগোপযোগী প্রশিক্ষণের মাধ্যমে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীকে একটি বিশ্বমানের বাহিনী হিসেবে গড়ে তোলার প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে বলে জানান সেনাবাহিনী প্রধান।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন