default-image

গাজীপুরে মহিলা, শিশু ও কিশোরী হেফাজতিদের নিরাপদ আবাসন কেন্দ্র থেকে ১৪ কিশোরী পালিয়ে যাওয়ার পর সাতজনকে আটক করা গেলেও শুক্রবার বিকেল পর্যন্ত বাকিদের সন্ধান পাওয়া যায়নি। তবে পুলিশ বলছে, তাদের আটক করতে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

ওই ঘটনায় গত বৃহস্পতিবার মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে পাঁচ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। ওই দিন বিকেলে মন্ত্রণালয়ের সচিব ছায়েদুল ইসলাম ঘটনাস্থল পরিদর্শনে এসে সাংবাদিকদের তদন্ত কমিটি গঠনের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

গাজীপুর মহানগর পুলিশের বাসন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুল ফারুক জানান, বুধবার গভীর রাতে ১৪ জন কিশোরী পালিয়ে যায়। পরে জয়দেবপুর জংশন থেকে সাতজনকে আটক করা হয়। তবে এখনো পলাতক বাকি সাতজনকে আটক করা যায়নি। পুলিশ তাদের আটক করতে বিভিন্ন স্থানে অভিযান অব্যাহত রেখেছে। এ ছাড়া এ ঘটনায় ওই কেন্দ্রের ভান্ডাররক্ষক আব্দুর রহমান মোল্লা বাদী হয়ে ১৪ জনকে আসামি করে বাসন থানায় মামলা করেছেন।

এর আগে ২০১৮ সালের ৯ সেপ্টেম্বর ওই কেন্দ্র থেকে একই কায়দায় ১৭ জন হেফাজতি পালিয়ে গিয়েছিল। পরে অভিযান চালিয়ে ওই দিনই ১২ জনকে উদ্ধার করা হয়েছিল। ওই ঘটনা তদন্তে গাজীপুর জেলা প্রশাসন তিন সদস্যের তদন্ত কমিটিও গঠন করেছিল।

গত ২৬ জানুয়ারি ওই কেন্দ্রে গলায় ফাঁস দিয়ে নাজমা আক্তার (২০) নামের এক নারী হেফাজতি আত্মহত্যা করেন। পরে পুলিশ তাঁর লাশ উদ্ধার করে।

বিজ্ঞাপন
জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন