সেবা প্রদানে ব্যর্থতা, বাস কর্তৃপক্ষকে জরিমানা

রাজশাহী জেলার মানচিত্র

গত ঈদে বাড়ি যাওয়ার জন্য এমআর পরিবহন নামে একটি বাসের অগ্রিম টিকিট কেটেছিলেন জুলকারনাইন নাঈম নামের এক যাত্রী। যাত্রার দিন কাউন্টারে গিয়ে দেখেন সেখানে বাস নেই। জানতে পারেন বাসটি রিজার্ভ ভাড়া পেয়ে অন্যত্র চলে গেছে।

পরে এ বিষয়ে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণের রাজশাহী জেলা কার্যালয়ে লিখিত অভিযোগ দেন ভুক্তভোগী। আজ রোববার এ বিষয়ে শুনানি হয়। অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় সংশ্লিষ্ট বাস কর্তৃপক্ষকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেছে ভোক্তা অধিকার।

বিষয়টি নিশ্চিত করে জেলা ভোক্তা অধিকার কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মাসুম আলী বলেন, ঈদের ছুটিতে সাতক্ষীরায় বাড়ি যাওয়ার জন্য গত ২৮ এপ্রিলের বাসের অগ্রিম টিকিট কাটেন জুলকারনাইন। নগরের ভদ্রা এলাকায় যাত্রার দিন গিয়ে জানতে পারেন আরএম পরিবহনের বাসটি অন্য যাত্রীদের নিয়ে রিজার্ভ ভাড়া নিয়ে চলে গেছে। এ বিষয়ে প্রতিকারের জন্য জুলকারনাইন বাস কাউন্টার কর্তৃপক্ষের কাছে জানতে চান। কিন্তু কাউন্টার থেকে বলা হয়, এ বিষয়ে তাঁদের কিছু করার নেই।

মাসুম আলী আরও বলেন, আজ রোববার সকালে ছিল এ অভিযোগের শুনানি। দুই পক্ষের উপস্থিতিতে আরএম পরিবহনের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন ভদ্রা এলাকার কাউন্টার ইনচার্জ মো. নান্টু, সুপারভাইজার বিপুল ও বাসের সুপারভাইজার ইমরান। তাঁরা জুলকারনাইনের অভিযোগের বিষয়টি স্বীকার করেছেন। প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী সেবা প্রদানের ব্যর্থতার দায়ে আরএম পরিবহনকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। বিধি অনুসারে জরিমানার ২৫ শতাংশ আড়াই হাজার টাকা অভিযোগকারীকে প্রদান করা হয়।

ভোক্তা অধিকার কর্তৃপক্ষের এমন বিচারে সন্তুষ্টি প্রকাশ করে অভিযোগকারী জুলকারনাইন প্রথম আলোকে বলেন, টিকিট কেটে কাউন্টারে গেলে কাউন্টারের লোকজন তাঁর সঙ্গে অযাচিত আচরণ করেন। পরে তিনি ভোক্তা অধিকারে অভিযোগ দেন। এত দ্রুত অভিযোগের নিষ্পত্তি হওয়ায় আনন্দিত জুলকারনাইন। এ ধরনের পরিস্থিতির শিকার হলে ভোক্তা অধিকারে অভিযোগ দেওয়া সবার উচিত বলে মনে করেন তিনি।