default-image

সৈয়দপুর পৌর নির্বাচনের প্রচারকালে জাতীয় পার্টির নেতা-কর্মীদের ওপর আওয়ামী লীগ হামলা চালিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। সৈয়দপুর শহরের গোলাহাট দুই নম্বর আটকে পড়া পাকিস্তানিদের ক্যাম্পের কাছে শনিবার দিবাগত রাত পৌনে ১২ টার দিকে এই ঘটনা ঘটে।

জাতীয় পার্টির পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে,  এই হামলায় তাদের নেতা-কর্মীদের ৩০টি মোটরসাইকেল ভাঙচুর ও দুটিতে আগুন দেওয়া হয়। পুলিশ জানিয়েছে, ফায়ার সার্ভিস আগুন নিয়ন্ত্রণে এনেছে।  

আওয়ামী লীগের ২ নম্বর ওয়ার্ড সভাপতি হিটলার চৌধুরী অভিযোগ করেন, জাতীয় পার্টির পৌর মেয়র প্রার্থী সিদ্দিকুল আলম তাঁর বাড়িতে হামলা চালায়। এ সময় তারা একটি জিপ গাড়ি ভাঙচুর করে ও তাঁর দুই কর্মীকে আহত করে। এ সময় বঙ্গবন্ধুর ছবিও ভাঙচুর করা হয়। সৈয়দপুর পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী হলেন, রাফিকা আকতার জাহান। আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি শেষ ধাপে এই পৌরসভার নির্বাচন।

বিজ্ঞাপন

সিদ্দিকুল আলম বলেন, পরিকল্পিতভাবে হিটলার চৌধুরীর নেতৃত্বে অতর্কিত এ হামলা চালানো হয়েছে। এসব মোটরসাইকেল ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের পাশাপাশি তাঁর দশজন কর্মীকে আহত করা হয়েছে। তিনি হিটলার চৌধুরীর বাড়ির হামলার বিষয়টি ‘অপবাদ’ বলে দাবি করেন।

সৈয়দপুর থানার ওসি আবুল হাসনাত খান বলেন, খবর পেয়ে ওই এলাকায় তাৎক্ষণিক পুলিশ পাঠানো হয়। এখন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা রবিউল ইসলাম বলেন, উভয় পক্ষ থেকে অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি নির্বাচন কমিশনে অভিহিত করা হচ্ছে।

উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোখছেদুল মোমিন জানান, ‘আমি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। জাতীয় পার্টির মেয়র প্রার্থী নির্বাচনের আচরণবিধি লঙ্ঘন করেছেন।’ তবে তিনি সংঘর্ষের বিষয়টি এড়িয়ে যান।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন