বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

অটোরিকশার চালক ও যাত্রীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, সোনাগাজী থেকে জেলা শহরের দূরত্ব ২০ কিলোমিটার। এ সড়কে ঈদের আগে পাঁচজন যাত্রীর জনপ্রতি সিএনজিচালিত অটোরিকশার ভাড়া ছিল ৪০ টাকা। কিন্তু ঈদের কারণে সেই ভাড়া দিনে ৬০ টাকা আর রাতে ৭০ থেকে ৮০ টাকা হয়ে গেছে। উপজেলা সদর থেকে ডাকবাংলা পর্যন্ত আগে ভাড়া ছিল ১০ টাকা, কিন্তু বর্তমানে আদায় করা হচ্ছে ২০ টাকা, আমির উদ্দিন মুন্সিরহাট থেকে ডাকবাংলা পর্যন্ত আগের ভাড়া ১৫ টাকা হলে আদায় করা হচ্ছে ৩০ টাকা, সোনাগাজী পৌর শহর থেকে সোনাপুর বাজারের ২০ টাকার ভাড়া নেওয়া হচ্ছে ৪০ টাকা। সোনাগাজী থেকে মুহুরী প্রকল্প এলাকায় ৪০ টাকার স্থলে নেওয়া হচ্ছে ৮০ থেকে ১০০ টাকা। এ ছাড়া উপজেলার প্রায় সব সড়কে সিএনজি ও ইজিবাইকের চালকেরা দ্বিগুণ ভাড়া আদায় করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

নুর আলম নামের পৌর শহরের এক ব্যবসায়ী প্রথম আলোকে বলেন, তিনি প্রতিদিন ফেনী থেকে যাতায়াত করেন। বর্তমানে সিএনজিচালিত অটোরিকশার চালকেরা যাত্রীদের কাছ থেকে জোর করে দ্বিগুণ ভাড়া আদায় করছেন। সাধারণ মানুষের মধ্যে এ নিয়ে চরম উৎকণ্ঠা তৈরি হয়েছে। রাত ৮টার পর ৪০ টাকার ভাড়া হয়ে যায় ৮০ থেকে ১০০ টাকা। এসব নৈরাজ্য দেখার যেন কেউ নেই।

সোনাগাজী সিএনজিচালিত অটোরিকশা শ্রমিক সংগঠনের সভাপতি মোশারফ হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, সোনাগাজী-ফেনী সড়কে অতিরিক্ত ভাড়া নেওয়ার বিষয়টি তাঁদের নজরে এসেছে। সংগঠনের পক্ষ থেকে চালকদের অতিরিক্ত ভাড়া নিতে নিষেধ করা হয়েছে। ফেনী থেকে সোনাগাজী পৌর শহরে অটোরিকশাতে পাঁচজন যাত্রীর জনপ্রতি ভাড়া ৪০ টাকা। কোনো চালক এর অতিরিক্ত ভাড়া নিলে তাঁদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জানতে চাইলে সহকারী কমিশনার (ভূমি) লিখন বণিক প্রথম আলোকে বলেন, অতিরিক্ত ভাড়া না নিতে এর আগেও সিএনজিচালকদের সংগঠনের নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। প্রয়োজনে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে জরিমানা করা হবে।

সোনাগাজী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. খালেদ হোসেন বলেন, ঈদকে কেন্দ্র করে অটোরিকশাসহ কিছু গাড়ির যাত্রীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ভাড়া নেওয়ার বিষয়টি তাঁদের নজরে এসেছে। তিনি শ্রমিকসংগঠন ও চালকদের অতিরিক্ত ভাড়া নিতে নিষেধ করেছেন। অন্যথায় তাঁদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানান তিনি।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন