default-image

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ উপজেলার রয়্যাল রিসোর্টে হেফাজত ইসলামের নেতা মামুনুল হক নারীসহ ঘেরাও হওয়ার পর ভাঙচুর ও পুলিশের ওপর হামলার মামলায় ১০ জনকে গ্রপ্তার করেছে পুলিশ। আজ রোববার ভোররাত ও সকালে বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে তাঁদের গ্রেপ্তার করা হয়। তাঁরা সবাই হেফাজত ইসলামের কর্মী বলে জানিয়েছে পুলিশ।

গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা হলেন মো. মিন্টু (২৮), নবীর হোসেন (৩২), কবির হোসেন (৪৫), মাওলানা হাবিবুর রহমান (৩৪), আমজাদ হোসেন (৫৫), যোবায়ের আহম্মেদ (২১), মো. সোহাগ (২১), লোকমান হোসেন (৩২), শহীদুল ইসলাম (৩১) ও মো. হাসান (৩৫)।

সোনারগাঁ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাফিজুর রহমান বলেন, আজ ভোররাত ও সকালে পুলিশের একাধিক টিম সোনারগাঁয়ের বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে তাঁদের গ্রেপ্তার করে। ঘটনার দিনের ভিডিও ফুটেজ দেখে গ্রেপ্তার ব্যক্তিদের চিহ্নিত করা হয়। ১০ জনকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

গত ৩ এপ্রিল হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব নারীসহ সোনারগাঁ রয়্যাল রিসোর্টে ঘেরাও হওয়ার পর বিক্ষুব্ধ হেফাজতকর্মীরা রয়্যাল রিসোর্ট ভাঙচুর, উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি রফিকুল ইসলামের ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান ভাঙচুর করার ঘটনায় সোনারগাঁ থানায় পুলিশ বাদী হয়ে দুটি এবং ক্ষতিগ্রস্থ যুবলীগ ও ছাত্রলীগ নেতারা বাদী হয়ে চারটি মামলা করেন। ছয়টি মামলায় এ পর্যন্ত পুলিশ ৫৬ জন হেফাজতে ইসলামের কর্মীকে গ্রেপ্তার করে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠিয়েছে।

বিজ্ঞাপন
জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন