বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

কয়েক প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, সোমবার উপনির্বাচনের মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক শামসুল ইসলাম ভূঁইয়ার সমর্থনে বিভিন্ন ইউনিয়ন থেকে ট্রাক, ট্রলার ও বাসে করে কয়েক হাজার নেতা-কর্মী উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয়ের সামনে জড়ো হন। বেলা দুইটা থেকে এই নেতা-কর্মীরা ঢাকঢোল পিটিয়ে বিভিন্ন ব্যানার ও পোস্টার নিয়ে স্লোগান দিতে দিতে বিভিন্ন স্থান থেকে এসে উপজেলা পরিষদের মাঠে একত্র হন।

একপর্যায়ে বেলা তিনটায় উপজেলা পরিষদের মাঠে কয়েক হাজার নেতা-কর্মীর সামনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী শামসুল ইসলাম ভূঁইয়া বক্তব্য দেন। এ সময় তিনি বলেন, ‘আপনারা এভাবে নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন করবেন না। সবাই মিছিল বন্ধ করুন এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে মাস্ক ব্যবহার করুন।’

বিকেল চারটায় নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাংসদ এ কে এম শামীম ওসমান, নারায়ণগঞ্জ-৩ (সোনারগাঁ) আসনের সাবেক সাংসদ আবদুল্লাহ আল কায়সার, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুল হাই, সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত বাদল, উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মাসুদুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক আবু জাফর চৌধুরী, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুর রহমান কালাম, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের উপকমিটির সদস্য মাসুদ দুলাল, দীপক কুমারসহ জেলা ও উপজেলা আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মীরা উপজেলা পরিষদ মাঠে উপস্থিত হন। এ সময় নেতা-কর্মীদের সামনে সাংসদ শামীম ওসমান বক্তব্য দেন।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে শামসুল ইসলাম ভূঁইয়া বলেন, ‘আমি আমার সমর্থকদের কোনো মিছিল সমাবেশ না করার জন্য নির্দেশ দিয়েছি।’

নারায়ণগঞ্জ জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও সোনারগাঁ উপজেলা উপনির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা মোহাম্মদ মতিয়ুর রহমান জানান, উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ছাড়া আর কোনো মনোনয়নপত্র জমা হয়নি। নির্বাচনী আচরণবিধি অমান্য করার ব্যাপারে কেউ কোনো অভিযোগপত্র দাখিল করেননি।

গত ২২ জুলাই উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন মারা যাওয়ায় সোনারগাঁ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে উপনির্বাচন হচ্ছে। নির্বাচন কমিশনের তফসিল অনুযায়ী আগামী ৭ অক্টোবর এ উপজেলায় ভোট নেওয়ার কথা ছিল। আওয়ামী লীগ প্রার্থী ছাড়া কেউ মনোনয়নপত্র দাখিল না করার কারণে এ উপজেলায় নির্বাচনের সম্ভাবনা নেই।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন