বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পরিবারের সদস্যদের বরাত দিয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য আবুল খায়ের বলেন, বছর খানেক আগে জীবিকার তাগিদে শেখ ফরিদ সৌদি আরবে পাড়ি জমান। দেশটির রাজধানী রিয়াদে বৈদ্যুতিক মিস্ত্রির কাজ করতেন।

গতকাল দুপুরের দিকে ফরিদ প্রতিদিনের মতো ক্রেনে উঠে বৈদ্যুতিক কাজ করছিলেন। একপর্যায়ে তিনি হঠাৎ ক্রেন থেকে ছিটকে নিচে পড়ে গুরুতর আহত হন। তাৎক্ষণিক সেখানে থাকা অন্যান্য শ্রমিক ও মালিকপক্ষের লোকজন ফরিদকে উদ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

ইউপি সদস্য জানান, ফরিদের বাবা আবদুল হালিম একজন কৃষক। তিন ভাই ও এক বোনের মধ্যে ফরিদ সবার বড়। স্থানীয় হাজীরহাট বিএম স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে উচ্চমাধ্যমিক পাস করেন ফরিদ। পরে ধারদেনা করে সৌদি আরবে যান। ছেলের মৃত্যুর খবর শোনার পর ভেঙে পড়েছেন ফরিদের মা–বাবা।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন