বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বিয়ের পর কারিনার নামে মোহসিন কিছু জমি লিখে দেন। মোহসিনের আগের স্ত্রীর দুই সন্তান রয়েছে। সন্তানেরা মোহসিনের দ্বিতীয় বিয়ে ও জমি লিখে দেওয়াকে স্বাভাবিকভাবে নিতে পারেননি। তাঁরা কারিনাকে শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতন করতেন। এ নিয়ে গ্রামে একাধিকবার সালিসও হয়েছে।

গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় কারিনা বাড়িতে বিষপানে আত্মহত্যা করেছেন বলে প্রচার চালান তাঁর সৎছেলে বাবলু মিয়া ও রাকিবুল ইসলাম। এর পর থেকে উভয়ে গা–ঢাকা দেন। খবর পেয়ে পুলিশ কারিনার লাশ বাড়ি থেকে রাতেই উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে। মঙ্গলবার লাশ ময়নাতদন্তের জন্য রংপুর মেডিকেল কলেজের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

কারিনার মা হাছিনা বেগম বলেন, ‘বাবা, ওরা (মোহসিন ও তাঁর দুই সন্তান) মোর মেয়েটাক খাবারের সাথে বিষ মিশি দিয়া মারি ফেলাইচে। মুই ওমার বিচার চাও।’

গঙ্গাচড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুশান্ত কুমার সরকার মঙ্গলবার সন্ধ্যায় মুঠোফোনে বলেন, কারিনার অস্বাভাবিক মৃত্যুর ঘটনায় তাঁর বড় ভাই মোস্তফা মিয়া বাদী হয়ে থানায় হত্যা মামলা করেছেন। এ ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে তাঁর স্বামী মোহসিন আলীকে মঙ্গলবার সকালে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ঘটনার পর থেকে মোহসিনের আগের স্ত্রীর দুই সন্তান পলাতক। ঘটনায় জড়িত অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন