default-image

সকাল নয়টায় স্বামী-স্ত্রীর ঝগড়া হয়। স্বামীকে ভয় দেখাতে স্ত্রী মুখে বিষ তুলে নেন। তবে তিনি তা গিলেননি। স্বজনেরা সত্যি ভেবে তাঁকে দ্রুত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। এর কিছুক্ষণ পরই বসতঘরে স্বামীর ঝুলন্ত লাশ পাওয়া যায়। টাঙ্গাইলের সখীপুর উপজেলার কালিয়ানপাড়া গ্রামে আজ শনিবার ঘটনাটি ঘটে।

পুলিশ দুপুরে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছে। এদিকে স্ত্রী রুমেলা আক্তারকে (৪০) জরুরি বিভাগের চিকিৎসক টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে পাঠানোর পরামর্শ দিলেও স্বামীর মৃত্যুর খবর পেয়ে তিনি বাড়িতে চলে গেছেন বলে পারিবারিক সূত্র নিশ্চিত করেছে।

ওই ব্যক্তির নাম আবদুল আজিজ (৫০)। তিনি উপজেলার কালিয়ানপাড়া গ্রামের বাসিন্দা। এ ঘটনায় সখীপুর থানায় অপমৃত্যুর একটি মামলা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

আবদুল আজিজের চাচাতো ভাই কামাল হোসেন বলেন, সংসারে অভাব থাকায় তাঁদের মধ্যে প্রায়ই ঝগড়া হতো। সকালে সামান্য কিছু নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া হয়। আজিজকে ভয় দেখাতে তাঁর স্ত্রী মুখে বিষ নিয়ে পান করার অভিনয় করেন। প্রতিবেশীরা তাঁকে হাসপাতালে ভর্তির উদ্দেশ্যে বাড়ি থেকে রওনা হলে আবদুল নিজ ঘরের আড়ার সঙ্গে ফাঁসি দেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসা কর্মকর্তা সুলতানা রাজিয়া প্রথম আলোকে বলেন, আজ দুপুর ১২টার দিকে স্বজনেরা রুমেলা নামের এক নারীকে বিষপানের রোগী হিসেবে জরুরি বিভাগে নিয়ে আসেন। পাকস্থলী থেকে বিষ অপসারণের জন্য চিকিৎসকেরা প্রস্তুতি নেওয়ার সময় ওই নারী দাবি করেন, তিনি বিষ পান করেননি, শুধু বিষ মুখে নিয়েছিলেন।

সুলতানা রাজিয়া আরও বলেন, পরে ওই রোগীকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়।

সখীপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মনিরুজ্জামান প্রথম আলোকে বলেন, আবদুল আজিজের লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠানো হয়েছে। তাঁর স্ত্রী বর্তমানে বাড়িতে অবস্থান করছেন। তিনি বিষ পান করেননি। তিনি স্বামীকে ভয় দেখাতে বিষপানের অভিনয় করেছিলেন।

মন্তব্য পড়ুন 0