default-image

কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুল মান্নান খান স্ত্রীসহ করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছেন। তিনি বর্তমানে ঢাকার একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তাঁর স্ত্রী লাভলী ইয়াসমিন ঢাকার বাসায় থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

আবদুল মান্নানের ভাতিজা জেমন খান বলেন, ৫ নভেম্বর ঢাকার বাসায় অবস্থান করার সময় চেয়ারম্যান চাচার মেয়ে সুমাইয়া করোনায় আক্রান্ত হন। এরপর তাঁকে ঢাকার একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তিনি এখনো সেখানে চিকিৎসা নিচ্ছেন। কয়েক দিন আগে চেয়ারম্যান চাচা ও চাচির শরীরে করোনার উপসর্গ দেখা দেয়। আগে থেকেই বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হওয়ায় চাচাকে ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে দুজনের করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা দেওয়া হয়। শনিবার রাতে চাচা ও চাচি দুজনের শরীরে করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়েছে।

জেমন খান আরও বলেন, চেয়ারম্যানের নিউমোনিয়াও ধরা পড়েছে। পাশাপাশি প্রচুর কাশি হচ্ছে। তবে তাঁর চাচি কিছুটা সুস্থ থাকায় তাঁকে বাসায় রেখে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। দেশবাসীর কাছে তাঁদের পরিবার দোয়া চেয়েছে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0