default-image

কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া উপজেলায় স্ত্রী ও সন্তানকে হত্যার দায়ে একজনকে মৃত্যুদণ্ড ও দুই লাখ টাকা জরিমানা এবং অনাদায়ে আরও এক বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। আজ সোমবার সকালে কিশোরগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মুহাম্মদ আব্দুর রহিম এই রায় দেন।

দণ্ডপ্রাপ্ত ওই ব্যক্তির নাম নজরুল ইসলাম। তাঁর বাড়ি পাকুন্দিয়া উপজেলার এগারসিন্দুর ইউনিয়নের পাবদা গ্রামে। রায় ঘোষণার সময় তিনি আদালতে উপস্থিত ছিলেন। রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলি ছিলেন যজ্ঞেশ্বর রায় চৌধুরী। আসামিপক্ষে ছিলেন অশোক সরকার।

মামলার নথি ও আদালত-সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী এক তরুণীর সঙ্গে অনৈতিক সম্পর্ক গড়ে তোলেন নজরুল ইসলাম। একপর্যায়ে ওই তরুণী অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়েন। এ নিয়ে সালিসের পর ২০১৬ সালের ১৬ নভেম্বর ওই তরুণীকে বিয়ে করেন নজরুল। বিয়ের তিন দিন পর ওই তরুণী ছেলেসন্তান প্রসব করেন। এরপর ২০১৭ সালের ১৩ জানুয়ারি ওই তরুণী হঠাৎ ছেলেসহ নিখোঁজ হন। সাত দিন পর উপজেলার আঙ্গিয়াদী এলাকার বিলভরায় বিল থেকে সন্তানসহ তরুণীর লাশ উদ্ধার করা হয়।

এ ঘটনার পর ২২ জানুয়ারি তরুণীর বড় ভাই আবদুল আওয়াল বাদী হয়ে নজরুল ইসলামসহ তাঁর পরিবারের চারজনকে আসামি করে পাকুন্দিয়া থানায় হত্যা মামলা করেন। একই বছরের ১৭ ফেব্রুয়ারি নজরুল ইসলাম গ্রেপ্তার হন এবং পরে আদালতে হত্যার দায় স্বীকার করে জবানবন্দি দেন। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পাকুন্দিয়া থানার আহুতিয়া তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ শাহাব উদ্দিন ২০১৮ সালের ২৪ জানুয়ারি নজরুল ইসলামকে একমাত্র আসামি করে আদালতে অভিযোগপত্র দেন।

বিজ্ঞাপন
জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন