আলাউদ্দিন প্রথম আলোর সঙ্গে যখন কথা বলছিলেন, তখন তিনি অঝর ধারায় কাঁদছিলেন। আক্ষেপ করে তিনি বলেন, ‘জীবনের ২৪টি বছর প্রবাসজীবনে কাটিয়েছি সন্তানদের ভবিষ্যৎ ও পরিবারের সুখশান্তির কথা চিন্তা করে। কিন্তু আমি এত দুর্ভাগা বাবা যে একটিবারও আমার মেয়েদের সঙ্গে ঈদ কাটাতে পারিনি। মেয়েরা প্রতিবার ঈদের আগে আমাকে দেশে আসার জন্য কত কাকুতিমিনতি করত। বলতাম, মা রে, আগামী ঈদে তোদের সঙ্গে কাটাব। এই করতে করতে মেয়েদেরই হারিয়েই ফেললাম। মেয়েদের সঙ্গে ঈদ কাটানো আর হলো না।’

জীবনের ২৪টি বছর প্রবাসজীবনে কাটিয়েছি সন্তানদের ভবিষ্যৎ ও পরিবারের সুখশান্তির কথা চিন্তা করে। কিন্তু আমি এত দুর্ভাগা বাবা যে একটিবারও আমার মেয়েদের সঙ্গে ঈদ কাটাতে পারিনি। মেয়েরা প্রতিবার ঈদের আগে আমাকে দেশে আসার জন্য কত কাকুতিমিনতি করত। বলতাম, মা রে, আগামী ঈদে তোদের সঙ্গে কাটাব। এই করতে করতে মেয়েদেরই হারিয়েই ফেললাম।
মো. আলাউদ্দিন

এবার ঈদে মেয়েরা অনেক আনন্দ করতে চেয়েছিল জানিয়ে আলাউদ্দিন বলেন, ‘সামনে ঈদ, অথচ আমি চলে যাচ্ছিলাম মেয়েদের ছেড়ে প্রবাসে। তাই মেয়েরা ঈদে পরার জন্য যা চেয়েছে, তা কিনে দিয়েছিলাম। প্রতিজনের জন্য চার জোড়া করে পোশাক কিনেছিলাম। পোশাকের সঙ্গে মিলিয়ে জুতাও কিনে দিয়েছিলাম। ছোট মেয়ে (যমজ) দুটি একই রকম পোশাক কিনেছিল। ঈদ এসেছে ঠিকই, কিন্তু আমার মেয়েরা পরে যেতে পারল না সেই পোশাক।’ মিনিট দুয়েকও কথা বলতে পারছিলেন না তিনি। চোখ আর গলা জলে ভিজে আসছিল।

আলাউদ্দিন বলেন, ‘গত ১৪ এপ্রিল মেয়েদের বিদায় দিয়ে প্রবাসে পাড়ি জমিয়েছিলাম। আমাকে বিদায় দিয়ে মেয়েরা চিরবিদায় নিল। আর বাড়ি ফিরল না। আমার মেয়েদের নিয়ে কত স্বপ্ন ছিল। আমার তিনটা মেয়েই মেধাবী ছিল। বাংলা, আরবি, গণিত ও ইংরেজিতে পারদর্শী ছিল। বড় মেয়ের ইচ্ছা ছিল সে ডাক্তার হবে। যমজ দুজনেই শিক্ষক হতে চেয়েছিল। আমি পারলাম না তাদের ইচ্ছে পূরণ করতে।’

আলাউদ্দিন বলেন, ‘মেয়েরা নেই। ঘর ফাঁকা। বাড়িতে আমার একদম ভালো লাগে না। তাই আবারও চলে যাব ওমানে। আগেই চলে যেতাম। কিন্তু স্বজনদের ইচ্ছায় আগামী কোরবানির ঈদ পর্যন্ত থাকব। এরপর চলে যাব।’

ঈদের দিন সন্তানদের শূন্যতা কিছু সময়ের জন্য ভোলাতে শ্যালক ওসমান গণি বোন-দুলাভাইকে তাঁর বাড়িতে নিয়ে আসেন। সকাল নয়টার দিকে দুলাভাই আলাউদ্দিনকে নিয়ে ঈদগাহের দিকে রওনা দেন ওসমান গণি। সাদা পাঞ্জাবি, টুপি ও লুঙ্গি পরে ঈদের নামাজ আদায় করেন আলাউদ্দিন। ঈদের নামাজ শেষে দুই মেয়ের কবর জিয়ারত করেন তিনি। এ সময় তিনি কান্নায় ভেঙে পড়েন। পরে স্বজনেরা আলাউদ্দিনকে সান্ত্বনা দিয়ে বাড়ি নিয়ে আসেন।

আলাউদ্দিনের শ্যালক ওসমান গণি প্রথম আলোকে বলেন, তাঁদের ও বোনের পরিবারে এবার অশ্রুভেজা ঈদ কাটছে। ১৩ দিন ধরে মেয়েদের জন্য কাঁদতে কাঁদতে তাঁর বোন পান্না বেগম অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। তাঁদের সান্ত্বনা দিতে তিনি কর্মস্থল থেকে বাড়িতে ফিরেছেন। সান্ত্বনা দেওয়া ছাড়া তো আর কিছুই করার নেই। মেয়েরা নতুন পোশাক পরে ঈদ করতে পারেনি, এ কারণে তাঁর বোন-দুলাভাই নতুন পোশাক কেনেননি। তিনি লুঙ্গি ও পাঞ্জাবি কিনে দিয়েছিলেন। সেগুলো পরতে চায়নি। একরকম জোর করে পরিয়েছেন তিনি। সকাল থেকে বাড়িতে চলছে মাতম। গত বছরও ঈদের দিনে তাঁর বোনের মেয়েরা কত আনন্দ করেছিল। নতুন পোশাক পরে এদিক-ওদিক ছুটোছুটি করেছিল। এবার পুরো বাড়ি শূন্য হয়ে আছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন