মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করে সাখাওয়াত হোসেন বলেন, নির্বাচনে অংশ নিতে মনোনয়নপত্র নিয়েছেন তিনি। দল যদি তাঁকে মনোনয়ন দেয় তিনি নির্বাচন করবেন, না দিলে যাঁকে মনোনয়ন দেবে তাঁর নির্বাচন করবেন। দল যদি এখানে কাউকে মনোনয়ন না দেয়, তাহলে তিনি স্বতন্ত্র থেকে নির্বাচনের মাঠে থাকবেন। তিনি নির্বাচন কমিশনকে ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট প্রত্যাহার করে ব্যালটের মাধ্যমে ভোট গ্রহণের দাবি জানান।

এ টি এম কামাল মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করে বলেন, দলের বাধা না থাকলে তিনি স্বতন্ত্র থেকে নির্বাচন করবেন। নির্বাচনে অংশ নেওয়ার বিষয়ে জেলা বিএনপির শীর্ষ নেতাদের সহযোগিতা চান তিনি। তিনি বলেন, এখানে বিএনপির বিশাল একটা ভোটব্যাংক রয়েছে। এর আগে মানুষ ভোট দিতে পারেননি। মানুষ যদি ভোট দিতে পারেন, তাহলে রায় তাঁর পক্ষে আসবে।

এই নির্বাচনে সাখাওয়াত হোসেন ও এ টি এম কামাল ছাড়াও সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে আলোচনায় আছেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও জেলা বিএনপির আহ্বায়ক তৈমুর আলম খন্দকারসহ বিএনপির আরও তিন নেতা।

এদিকে গত শুক্রবার সিটি নির্বাচনে মেয়র পদে আবারও বর্তমান মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভীকে দলীয় মনোনয়ন দেয় কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বোর্ড।

আওয়ামী লীগ থেকে আইভী ছাড়াও এবারের নির্বাচনে অংশ নিতে ইচ্ছা প্রকাশ করে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ ও জমা দিয়েছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত মো. শহীদ বাদল, মহানগর আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি চন্দন শীল এবং সাধারণ সম্পাদক খোকন সাহা। তাঁরা সবাই নারায়ণগঞ্জ-৪ (ফতুল্লা-সিদ্ধিরগঞ্জ) আসনের আওয়ামী লীগ দলীয় সাংসদ শামীম ওসমানের ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত।

জেলা বিএনপির আহ্বায়ক তৈমুর আলম খন্দকার প্রথম আলোকে বলেন, দলীয় হাইকমান্ডের সঙ্গে সিটি নির্বাচন নিয়ে আলোচনা চলছে। এই মুহূর্তে আমাদের কাছে মুখ্য বিষয় দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার চিকিৎসা, নির্বাচন নয়। তবে তৃণমূল নেতা-কর্মীদের মনোভাব দলকে জানানো হয়েছে। তিনি বলেন, যাঁরা মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন তাঁরা ব্যক্তিগতভাবে কিনেছেন। দলের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

এ ব্যাপারে জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মতিয়ুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, মেয়র পদে তিন প্রার্থী মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন।

উল্লেখ্য, গত ৩০ নভেম্বর নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। তফসিল অনুযায়ী, মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিন ১৫ ডিসেম্বর। মনোনয়নপত্র বাছাই ২০ ডিসেম্বর, প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন ২৭ ডিসেম্বর। ভোট গ্রহণ আগামী বছরের ১৬ জানুয়ারি। এবারের পুরো সিটি নির্বাচন ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট হবে।