বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গতকাল বুধবার বিকেলে ভাদসা উচ্চবিদ্যালয় মাঠে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী হায়দার আলীর নির্বাচনী পথসভায় তাঁর কর্মী আবুল কালাম সাম্প্রদায়িক বক্তৃতা করেন। ওই বক্তব্যের ভিডিও ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে। ২৫ সেকেন্ডে ভিডিওতে আবুল কালামকে বলতে দেখা যায়, ‘আমি ওই ভাইদের বলতে চাই, আপনারা কী নিজের স্ত্রীর মাথায় সিঁদুর দেবেন নাকি? কী ভাইয়েরা ভুল বললাম নাকি? আপনারা জবাব দেন, যদি সিঁদুর পরাতে চান, তাহলে নৌকায় ভোট দেন। জামায়াতের ভাইদের প্রতি বলতেছি।’

এ ঘটনায় আজ বৃহস্পতিবার জেলা আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণবিষয়ক সম্পাদক মাহমুদ হাসান বাদী হয়ে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে আবুল কালাম ও আবু জাফরের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাত আরও চার-পাঁচজনকে আসামি করা জয়পুরহাট সদর থানায় মামলা করেন। পরে পুলিশ মামলার আসামি আবু জাফরকে গ্রেপ্তার করেছে।

জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক গোলাম মাহফুজ চৌধুরী সাংবাদিকদের বলেন, ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীর পথসভায় প্রকাশ্যে মাইকে আওয়ামী লীগ সম্পর্কে সাম্প্রদায়িক অপপ্রচার কখনো মেনে নেওয়া যায় না।

এ বিষয়ে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী হায়দার আলী বলেন, নৌকার প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকেরা আবুল কালামের বক্তব্য আংশিক ও বিকৃতভাবে প্রকাশ করেছে। আবুল কালাম একজন আওয়ামী লীগের কর্মী।

জয়পুরহাট পুলিশ সুপার (এসপি) মাছুম আহম্মদ বলেন, ভাদসা ইউনিয়নে নির্বাচনী পথসভায় দেওয়া বক্তব্যের ভিত্তিতে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হয়েছে। একজন আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন