বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আদালত সূত্রে জানা গেছে, সরকারি হিসাবে হবিগঞ্জের বিভিন্ন এলাকায় ৯৯টি ইটভাটা গড়ে উঠেছে। তবে বেসরকারি হিসাবে এর দ্বিগুণ ইটভাটা রয়েছে। এর মধ্যে বাহুবল ও চুনারুঘাট উপজেলাতেই ৬৫টি ইটভাটা রয়েছে। নিয়মনীতি না মেনে এসব ইটভাটা গড়ে ওঠায় পরিবেশদূষণ, কৃষিজমির উর্বরতা শক্তি হ্রাস, রাস্তাঘাটসহ অবকাঠামোগত ক্ষতি হচ্ছে। এ নিয়ে স্থানীয় লোকজনের নানা অভিযোগ ও সংবাদপত্রে বেশ কিছু প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। আদালতের কাছে বিষয়গুলো প্রতীয়মান হওয়ায় আদালত স্বপ্রণোদিত হয়ে তদন্তের নির্দেশ এবং অন্তর্বর্তীকালীন পদক্ষেপ গ্রহণের আদেশ দেন।

ওই আদেশে বলা হয়, বাংলাদেশ পরিবেশ অধিদপ্তর হবিগঞ্জ জেলা কার্যালয়ের উপপরিচালক একজন দক্ষ কর্মকর্তা নিয়োগ দিয়ে ২০ ডিসেম্বরের মধ্যে আদালতে প্রতিবেদন জমা দেবেন। প্রতিবেদনে জেলায় চলমান ইটভাটার পরিসংখ্যান, পরিবেশগত ছাড়পত্র ও অনুমোদন আছে—এমন ইটভাটার সংখ্যা, অনুমোদনহীন ইটভাটার সংখ্যা, অনুমোদহীন ভাটাগুলোর বিষয়ে পরিবেশ অধিদপ্তর থেকে কী ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে, মামলার সংখ্যা, ইটভাটাগুলোতে ১২০ ফুট উচ্চতার চিমনি আছে কি না—এসব বিষয় উল্লেখ করতে বলা হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন