বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ডিআইজি বলেন, ‘হাজার বছরের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে আমরা বাংলাদেশের স্বাধীনতা ও বিজয় অর্জন করেছি। বীর মুক্তিযোদ্ধারা জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান। তাঁদের অনেকে আমাদের মাঝে নেই। ভবিষ্যতে হয়তো জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদের সংবর্ধনা দেওয়ার সুযোগ থাকবে না। এই মহান বিজয়ের সুবর্ণজয়ন্তী ও মুজিব শতবর্ষে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মাননা দিতে পেরে জেলা পুলিশ গর্বিত।’

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ মমিনুর রহমান বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু না হলে আমরা স্বাধীনতা অর্জন করতে পারতাম না। বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য আজকে আমরা স্বাধীন–সার্বভৌম দেশের নাগরিক। বীর মুক্তিযোদ্ধাদের ভাতা, সম্মানী থেকে শুরু করে সবকিছুই জাতির পিতার সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা করে যাচ্ছেন।’

চট্টগ্রাম জেলা পুলিশ সুপার এস এম রশিদুল হকের সভাপতিত্বে সংবর্ধনা সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত ডিআইজি (প্রশাসন ও অর্থ) মো. ইকবাল হোসেন, অতিরিক্ত ডিআইজি (অভিযান) মো. সাইফুল ইসলাম, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ চট্টগ্রাম মহানগর ইউনিট কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা মোজাফফর আহমদ, জেলা ইউনিটের ভারপ্রাপ্ত কমান্ডার এ কে এম সরোয়ার কামাল, চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী ফরিদ প্রমুখ।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন