default-image

চট্টগ্রামের সাতকানিয়ায় স্বামীর দায়ের কোপে গুরুতর আহত স্ত্রী নুসরাত শারমিন রিনা (৩০) মারা গেছেন। বৃহস্পতিবার রাতে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাঁর মৃত্যু হয়।

নুসরাত শারমিন দুই সন্তানের জননী ছিলেন। এ ঘটনায় নুসরাতের স্বামী আবদুর রহিমকে (৪৫) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। আবদুর রহিম উপজেলার ঢেমশা ইউনিয়নের উত্তর ঢেমশা সিকদারপাড়া গ্রামের মৃত রমজু মিয়ার ছেলে।

বিজ্ঞাপন

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, আবদুর রহিম তাঁর স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে উত্তর ঢেমশা এলাকায় বাসা ভাড়া নিয়ে বসবাস করছিলেন। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ছয়টার দিকে পারিবারিক কলহের জের ধরে আবদুর রহিম তাঁর স্ত্রী নুসরাত শারমিনকে দা দিয়ে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে গুরুতর আহত করেন। এরপর তিনি ৯৯৯-এ ফোন করে ঘটনার বিবরণ জানান। পরে তিনি দুই সন্তানকে পাশের বোনের বাড়িতে রেখে পালিয়ে যাওয়ার সময় উত্তর ঢেমশা এলাকার একটি সড়ক থেকে পুলিশ তাঁকে গ্রেপ্তার করে। এদিকে গুরুতর আহত নুসরাতকে পুলিশের সহযোগিতায় স্বজনেরা উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন। রাত সাড়ে ১০টার দিকে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

বিজ্ঞাপন

সাতকানিয়া থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. রমজান আলী প্রথম আলোকে বলেন, সন্দেহের কারণে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে পারিবারিক কলহ চলছিল। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার দিকে ওই কলহের জের ধরে স্বামী আবদুর রহিম তাঁর স্ত্রীকে কুপিয়ে গুরুতর জখম করেন। এরপর তিনি ৯৯৯-এ ফোন করে ঘটনার বিবরণ দেন। পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টার সময় তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

সাতকানিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ার হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, স্বামীর দায়ের কোপে গুরুতর আহত স্ত্রী নুসরাত শারমিন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বৃহস্পতিবার রাতেই মারা গেছেন। গ্রেপ্তার আবদুর রহিম প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে পারিবারিক কলহের জের ধরে দা দিয়ে স্ত্রীকে কোপানোর কথা স্বীকার করেছেন। ঘটনাস্থল থেকে ওই দা উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলা প্রক্রিয়াধীন।

মন্তব্য পড়ুন 0