default-image

যশোরে এক গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ওই গৃহবধূর নাম আইরিন সুলতানা (৩৫)। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে শহরের চাঁচড়া তেঁতুলতলা এলাকায় স্বামী পিয়াস হোসেন (৪০) তাঁকে পিটিয়ে হত্যা করেন বলে অভিযোগ করেছে নিহতের পরিবার।

পিয়াস হোসেন যশোর শহরের বেজপাড়া এলাকার মো. বাবলুর ছেলে। তিনি স্ত্রী আইরিন সুলতানা রিনিকে নিয়ে শহরের চাঁচড়া তেঁতুলতলা এলাকায় একটি বাড়িতে ভাড়া থাকতেন।

আইরিনের ভাই গিয়াস উদ্দিন বলেন, তাঁর ভগ্নিপতি পিয়াস হোসেন মাদকাসক্ত। তিনি প্রায়ই তাঁর বোনকে শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতন করতেন। বৃহস্পতিবার সকালে তাঁর বোন তাঁকে মোবাইল ফোনে জানান, পিয়াস তাঁর সঙ্গে ঝগড়া-বিবাদ করছেন। এরপর দুপুরে তিনি জানতে পারেন তাঁর বোনকে যশোর ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। বেলা দেড়টার দিকে তিনি হাসপাতালে গিয়ে তাঁর বোনের মরদেহ দেখতে পান। তাঁকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। তাঁর শরীরের বিভিন্ন জায়গায় আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক দেলোয়ার হোসেন খান বলেন, ওই গৃহবধূর গলা ও পিঠে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। তাঁর কান দিয়ে রক্ত বের হচ্ছিল। ময়নাতদন্তের পর মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা যাবে।

কোতোয়ালি থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মো. অহেদুজ্জামান বলেন, লাশের শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। সুরতহাল প্রতিবেদন শেষে ময়নাতদন্তের জন্য লাশ যশোর ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে আইনগত বিষয় প্রক্রিয়াধীন।

বিজ্ঞাপন
জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন