বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, হাফিজুল-ফেন্সী দম্পতির সাত ছেলেমেয়ে। এর মধ্যে চার মেয়ের বিয়ে হয়েছে। তিন ছেলে চাকরি ও পড়াশোনার জন্য ঢাকায় থাকেন। বাড়িতে শুধু তাঁরা স্বামী-স্ত্রীই থাকতেন। আজ সকাল সাড়ে ১০টার দিকে স্থানীয় এক মাংস বিক্রেতা তাঁদের বাড়িতে মাংস দিতে আসেন। অনেকক্ষণ ডাকাডাকি করে কোনো সাড়া না পেয়ে বিক্রেতা জানালার ফাঁক দিয়ে দেখেন ফেন্সী বেগমের মুখে স্কচটেপ আটকানো ও হাত-পা বাঁধা। পরে তিনি আশপাশের লোকজনকে ডাকাডাকি করেন। তাঁরা এসে দেখেন, আরেকটি কক্ষে কম্বল দিয়ে মোড়ানো হাফিজুলের লাশ। খবর পেয়ে পুলিশ এসে লাশ দুটি উদ্ধার করে।

দিনাজপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোমিনুল করিম বলেন, স্বামী-স্ত্রীর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। দুজনের গায়ে কোনো আঘাতের চিহ্ন নেই। ধারণা করা হচ্ছে, শ্বাসরোধে দুজনকে মারা হয়েছে। লাশ দুটির সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি করে ময়নাতদন্তের জন্য দিনাজপুর এম আবদুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হবে। পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে আলোচনা করে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন