বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ময়মনসিংহে অবস্থিত বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে মোট ১৩টি হল রয়েছে। এগুলোর মধ্যে চারটি মেয়েদের এবং নয়টি ছেলেদের। সব মিলিয়ে ছয় হাজার আবাসিক শিক্ষার্থী থাকলেও বর্তমানে প্রায় দুই হাজার শিক্ষার্থীকে হলে ওঠার সুযোগ দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব হলের বাসিন্দা এবং পরিবেশবিজ্ঞান বিভাগের স্নাতকোত্তর শ্রেণির শিক্ষার্থী আবুল বাশার জানান, এত দিন পর ক্যাম্পাসে ফিরতে পেরে সবার মনে স্বস্তি বিরাজ করছে। একাডেমিক কার্যক্রম অনলাইনে টুকিটাকি চললেও সশরীর বিশ্ববিদ্যালয়ে উপস্থিত হতে পেরে ভিন্ন রকমের আনন্দ অনুভব করছেন।

ডিন কাউন্সিলের আহ্বায়ক এ কে ফজলুল হক ভূঁইয়া জানান, ২৭ সেপ্টেম্বর থেকে অনার্স চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থীদের সশরীর ফাইনাল পরীক্ষা শুরু হবে। এ কারণে চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থীদের জন্য শুক্রবার থেকে হল খুলে দেওয়া হয়েছে। প্রথম থেকে তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থীদের জন্য হল খুলে দেওয়া হবে আগামী ৩ অক্টোবর। তাঁদের সেমিস্টার ফাইনাল শুরু হবে ১৭ অক্টোবর থেকে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রবিষয়ক উপদেষ্টা এ কে এম জাকির হোসেন বলেন, জরুরি অবস্থা বা যেকোনো ধরনের পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে সব ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। যাঁরা টিকা গ্রহণ করেছেন, তাঁদেরই কেবল হলে ওঠানোর চেষ্টা চলছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন