বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

শহরের রামবাবু সড়কের বিদ্যাময়ী সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায়, আঙিনা ও শ্রেণিকক্ষ পরিষ্কারের কাজ চলছে। প্রধান শিক্ষক নাছিমা আক্তার বলেন, করোনা মোকাবিলায় বিশেষ প্রস্তুতি হিসেবে বিদ্যালয়ের বিভিন্ন স্থানে বসানো হয়েছে পানির কল (বেসিন)। ওই সব কলের সামনে রাখা হবে সাবান। শিক্ষার্থীদের মাস্ক পরাসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য ইতিমধ্যে অনলাইন ক্লাসে মহড়া হয়েছে।

শহরের কে বি ইসমাইল সড়কের প্রিমিয়ার আইডিয়াল হাইস্কুল ও মহারাজা সড়কের মুকুল নিকেতন উচ্চবিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের সংখ্যা বেশি। একসঙ্গে সব শ্রেণির ক্লাস হলে এ দুটি বিদ্যালয়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা হবে কঠিন।

প্রিমিয়ার আইডিয়াল হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক মো. চান মিঞা বলেন, দীর্ঘদিন পর স্কুল খোলার সংবাদে তাঁরা আনন্দিত। তাঁর বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীর সংখ্যা চার হাজারের বেশি। স্বাভাবিক সময়ে একটি বেঞ্চে চারজন করে শিক্ষার্থী বসানো হয়। কোভিড পরিস্থিতি এক বেঞ্চে কতজন শিক্ষার্থীকে বসানো যাবে, সে ব্যাপারে এখনো কোনো নির্দেশনা পাননি। সব শ্রেণির ক্লাস এক দিনে চললে স্বাস্থ্যবিধি মানা কঠিন। তবে সরকার যে নির্দেশ দেয়, তাঁরা সেটিই পালন করতে প্রস্তুত।

মুকুল নিকেতন উচ্চবিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৪ হাজার ৭০০। বিদ্যালয়ের ছয় ফুট লম্বা প্রতিটি বেঞ্চে চার থেকে পাঁচজন শিক্ষার্থী বসে। এখানেও এক দিনে সব শ্রেণির ক্লাস চালু রাখা হলে স্বাস্থ্যবিধি শতভাগ মানা সম্ভব হবে না। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. সামছুল আলম বলেন, করোনাকালের বিশেষ প্রস্তুতি বিদ্যালয়ের প্রতিটি তলায় বেসিন বসানো হয়েছে। সেসব বেসিনে পর্যাপ্ত সাবান ও স্যানিটাইজার রাখা হবে। এ ছাড়া শরীরের তাপমাত্রা মাপার জন্য যন্ত্র কিনেছেন তাঁরা।

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে অবস্থিত কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক ছৈয়দ রায়হান উদ্দিন বলেন, গত শুক্রবার রাতে তাঁরা বিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা কমিটির সঙ্গে আলোচনা সভা করেছেন। আজ রোববার প্রস্তুতি সভা রয়েছে। আলোচনা করে তাঁরা করণীয় সম্পর্কে সিদ্ধান্ত নেবেন।

মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের ময়মনসিংহ অঞ্চলের পরিচালক আবু নুর মোহাম্মদ আনিসুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, ১২ সেপ্টেম্বর স্কুল-কলেজ খুলে দেওয়ার ঘোষণা বিষয়ে তাঁরা এখনো সরকারি কোনো নির্দেশনা পাননি। ফলে এক দিনে সব শ্রেণির ক্লাস হবে না একেক দিন একেকটি শ্রেণির ক্লাস চলবে, সে বিষয়ে কিছু বলা যাচ্ছে না। সরকার যে নির্দেশনা দেয়, তাঁরা সেভাবে কাজ করবেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন