বিজ্ঞাপন

পাটলী ইউনিয়নের সাতহাল গ্রামের বাসিন্দা নজরুল ইসলাম বলেন, ‘১০ কিলোমিটার সড়কের এক কিলোমিটার অংশে ছোট–বড় অসংখ্য গর্তের সৃষ্টি হয়েছিল। এতে সড়কটি যান চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়ে। চাকা গর্তে পড়ে যাওয়ায় অটোরিকশাসহ অন্যান্য যানবাহন উল্টে প্রায়ই দুর্ঘটনাও ঘটত। ইউপি চেয়ারম্যান শ্রমিক নিয়োগ করে গর্ত ভরাট করে দেওয়ায় আমরা খুশি। গত দুই দিন ধরে গর্ত ভরাট কাজ চলছিল। আজ মঙ্গলবার দুপুরে কাজ শেষ হয়।’

পাটলী ইউপির চেয়ারম্যান সিরাজুল হক জানান, ‘সড়কের জগন্নাথপুর পৌরসভার কেশবপুর অংশ থেকে পাটলী ইউনিয়নের রসুলগঞ্জ বাজার এলাকা পর্যন্ত ছোট–বড় অসংখ্য গর্ত সৃষ্টি হয়েছিল। প্রতিদিন দুর্ঘটনার খবর পাওয়া যেত। বিষয়টি আমি এলজিইডির কর্মকর্তাদের বারবার জানালেও অর্থ বরাদ্দ না থাকায় তাঁরা সংস্কারকাজ করছিলেন না। তাই ঈদ সামনে রেখে নিরাপদ চলাচল নিশ্চিত করতে আমি গর্তগুলো ভরাট করে দিয়েছি।’

এ বিষয়ে উপজেলা প্রকৌশলী গোলাম সারোয়ার বলেন, ‘বরাদ্দ পাওয়া গেলে আমরা সড়কে সংস্কারকাজ করাব। এই মুহূর্তে আমাদের কাছে সংস্কারকাজের কোনো বরাদ্দ নেই।

জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) পদ্মাসন সিংহ বলেন, ইউপি চেয়ারম্যান নিজ উদ্যোগে সড়কের গর্ত ভরাট করে দিয়েছেন। তিনি নিঃসন্দেহে প্রশংসনীয় কাজ করেছেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন