বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

স্থানীয় লোকজনের বরাত দিয়ে বেংহাড়ি বনগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ বলেন, সকালে তেপুকুরিয়া-ময়দানদিঘি সড়ক দিয়ে ইজিবাইক নিয়ে বোদা উপজেলা শহরের দিকে যাচ্ছিলেন ইজিবাইকচালক সুকুমার রায়। এ সময় তিনি সড়কের কুমিল্লাপাড়া কালভার্টের পাশে মোটরাইকেলসহ রক্তাক্ত ওই তরুণকে পড়ে থাকতে দেখেন। পরে সুকুমার স্থানীয় লোকজন ডেকে রঞ্জিতের পরিচয় নিশ্চিত হন।

ইউপি চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ বলেন, খবর পেয়ে স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় পরিবারের লোকজন তাঁকে উদ্ধার করে প্রথমে বোদা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। সেখানে তাঁর অবস্থার অবনতি হলে চিকিৎসক তাঁকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তরের পরামর্শ দেন। পরে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পথে নীলফামারীর ডোমার এলাকায় রঞ্জিতের মৃত্যু হয়। তিনি বলেন, কিসের সঙ্গে ধাক্কা খেয়ে এমন ঘটনা ঘটেছে, তা খুঁজে পাওয়া যায়নি। সড়কে চলাচল করা কোনো ট্রাক্টর তাঁকে ধাক্কা দিয়ে পালিয়ে গেছে বলে ধারণা করছেন স্থানীয় লোকজন।

বোদা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু সাঈদ চৌধুরী বলেন, ওই তরুণকে কোনো ট্রাক্টর ধাক্কা দিয়ে পালিয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এ ঘটনায় নিহতের পরিবার কোনো অভিযোগ করেনি। লাশের প্রাথমিক সুরতহাল শেষে পরিবারের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ময়নাতদন্ত ছাড়াই স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন