default-image

প্রচণ্ড শারীরিক দুর্বলতা ও অসুস্থতা নিয়ে ১৫ দিন ধরে গাজীপুরের শ্রীপুরের সলিং মোড় বাজার এলাকায় সড়কের পাশে পড়েছিলেন অজ্ঞাতপরিচয়ের এক নারী (৫৫)। স্থানীয় লোকজন খাবার দিলেও দুর্বলতার কারণে খেতে পারতেন না। তাঁর সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করে পরিচয়ও জানা যাচ্ছিল না। খবর পেয়ে রোববার সন্ধ্যায় ওই নারীকে উদ্ধার করে চিকিৎসার দায়িত্ব নিয়েছেন এক পুলিশ কর্মকর্তা।

সলিং মোড় এলাকার স্থানীয় মোতালেব মুন্সী বলেন, ১৫ দিন আগে এই নারীকে সড়কের পাশে শুয়ে থাকতে দেখা যায়। তিনি শারীরিক দুর্বলতাসহ বিভিন্ন রোগে ভুগছেন বলে মনে হচ্ছিল। বাজারের লোকজন কয়েক দিন ধরে ওই নারীকে খাবার দিচ্ছিলেন। তবে তিনি খাবার তেমন খেতে পারছিলেন না। তাঁর পরিচয় সম্পর্কে জানার চেষ্টা করা হয়েছে। কিন্তু তিনি অসুস্থতার কারণে এ সম্পর্কে কোনো তথ্যই দিতে পারেননি। কিছু জিজ্ঞেস করলে বিড়বিড় করে কথা বলার চেষ্টা করেন। পরে ওই নারীর সড়কের পাশে পড়ে থাকার খবর পান শ্রীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খন্দকার ইমাম হোসেন।

মানবিক বিবেচনায় ওই নারীকে সব চিকিৎসার দায়িত্ব নিয়েছি। তাঁকে চিকিৎসা দিয়ে সুস্থ করে তাঁর সম্পর্কে তথ্য জেনে পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করব।
খন্দকার ইমাম হোসেন, ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, শ্রীপুর থানা
বিজ্ঞাপন

সলিং মোড়ের জাহাঙ্গীর আলম নামের এক ব্যক্তি বলেন, রোববার সন্ধ্যায় ওসি নিজে এসে ওই নারীকে উদ্ধার করে শ্রীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। নিয়ে যাওয়ার আগে নারীর কাছ থেকে তাঁর পরিচয় নেওয়ার চেষ্টা করেন ওসি। কিন্তু অসুস্থতার কারণে তাঁর সম্পর্কে কিছুই জানতে পারেননি তিনি।

পুলিশ কর্মকর্তা খন্দকার ইমাম হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, স্থানীয় এক ব্যক্তির কাছ থেকে খবর পেয়ে তিনি সেখানে যান। নারীকে দেখে খুবই অসুস্থ ও অসহায় মনে হচ্ছিল। দেখে মনে হয়েছে কেউ ওই নারীকে এখানে ফেলে গেছেন। এটা সত্যিই অমানবিক। ওসি বলেন, ‘মানবিক বিবেচনায় ওই নারীকে সব চিকিৎসার দায়িত্ব নিয়েছি। তাঁকে চিকিৎসা দিয়ে সুস্থ করে তাঁর সম্পর্কে তথ্য জেনে পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করব।’

শ্রীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) ফাতেহ আকরাম প্রথম আলোকে জানান, ওই নারী কিছুটা মানসিক বিকারগ্রস্ত। তাঁর শারীরিক দুর্বলতা আছে। তিনি বারবার বিছানা ছেড়ে চলে যেতে চাইছেন। হাসপাতালে তাঁকে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

মন্তব্য পড়ুন 0