বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মো. হাসান-আল-মারুফ প্রথম আলোকে বলেন, আজ সকালে ডিঙ্গাডোবা এলাকায় নিয়মিত দায়িত্ব পালন করছিলেন তাঁরা। তাঁদের কাছে আগেও সয়াবিন তেলের বেশি দাম রাখার বিষয়ে অভিযোগ ছিল। পরে তাঁদের একজন সহকর্মীকে দিয়ে বহরমপুরের ডিঙ্গাডোবা এলাকার হাবিব স্টোর থেকে এক লিটার খোলা সয়াবিন তেল কেনান। এতে দোকানদার দাম রাখেন ১৮৫ টাকা। এ ছাড়া তাঁর দোকানে কোনো মূল্যতালিকাও ছিল না। এ জন্য ভোক্তা অধিকার আইনে দোকানটি সাত দিনের জন্য সিলগালা করেছেন তিনি। আগামী সাত কার্যদিবস শেষে ২২ মে দোকানদার মিজানুর রহমানকে তাঁদের কার্যালয়ে এসে শুনানিতে উপস্থিত হওয়ার জন্য বলা হয়েছে। শুনানি শেষে এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

দোকানদার মিজানুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, বাজারে সবাই কমবেশি সয়াবিন তেলের দাম বেশি রাখছে। পাঁচ টাকা আহামরি বেশি না। তাঁদের বেশি দিয়ে কিনতে হচ্ছে। কিন্তু তাঁদের মতো ক্ষুদ্র দোকানেই অভিযান চালানো হচ্ছে। এটা তাঁরা ঠিক করছেন না। মূল্যতালিকার বিষয়ে তিনি বলেন, মূল্যতালিকা ছিল। এটা ভেঙে গেছে। মেরামত করতে হবে। কিন্তু তাদের (ভোক্তা অধিকার) বোঝানোর পরও দোকানটা সিলগালা করল।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন