default-image

বগুড়া শহরের নিশিন্দারা এলাকার বালু ব্যবসায়ী হজরত আলী মণ্ডলকে (৩৫) কুপিয়ে হত্যার দায়ে তিনজনকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। একই মামলায় প্রধান আসামিসহ পাঁচজনকে বেকসুর খালাস দেওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার বিকেলে জেলা ও দায়রা জজ নরেশ চন্দ্র সরকার এ রায় দেন।

দণ্ডপ্রাপ্ত তিন ব্যক্তি হলেন নিশিন্দারা উত্তরপাড়ার মারুফ রায়হান (৩৬), আকন্দপাড়ার মোহাম্মদ মানিক (২৫) ও মধ্যপাড়ার মোহাম্মদ সাঈদী (২৭)। একই সঙ্গে তাঁদের ১০ হাজার করে টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

খালাস পাওয়া ৫ জন হলেন বগুড়া পৌরসভার ১৬ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর জহুরুল ইসলাম মণ্ডল (৫১), সুলতানগঞ্জ পাড়ার শাওন ওরফে সজীব (২৫), পালসা এলাকার মোহাম্মদ সুজন (৩৮), নিশিন্দারা চকরপাড়ার শাহিনুর রহমান (২৫) ও কাজিম হোসেন (২৭)।

বিজ্ঞাপন

এজাহার সূত্রে জানা গেছে, বালু ব্যবসা নিয়ে বিরোধের জেরে ২০১৭ সালের ১৬ এপ্রিল বেলা দেড়টার দিকে নিশিন্দারা মণ্ডলপাড়া এলাকার হজরত আলীকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে ১৬ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলরের কার্যালয়ের সামনে আমবাগান এলাকায় ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় হজরত আলীর মা মেরিনা বেগম কাউন্সিলর জহুরুল ইসলামকে প্রধান আসামি করে আটজনের বিরুদ্ধে ওই দিনই বগুড়া সদর থানায় মামলা করেন। তদন্ত শেষে ২০১৭ সালের ২৯ নভেম্বর আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে পুলিশ। এর তিন বছরের মাথায় রায় হলো। এতে সাক্ষ্য–প্রমাণে দোষী প্রমাণিত হওয়ায় তিনজনকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মুত্যুদণ্ডের আদেশ দেন আদালত। আর দোষ প্রমাণ না হওয়ায় প্রধান আসামিসহ পাঁচজনকে খালাস দেওয়া হয়।

রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলি আবদুল মতিন বলেন, আসামিপক্ষ রায়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আপিল করতে পারবেন। আপিল নিষ্পত্তির পর রায় কার্যকর হবে।

মন্তব্য পড়ুন 0