বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পুলিশ জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় গত সোমবার ঢাকার যাত্রাবাড়ী থেকে রাসেল মৃধাকে আটক করে পুলিশ। মঙ্গলবার তাঁকে গৌরনদী থানায় আনা হয়।

রাসেল মৃধা জানিয়েছেন, মা তাঁকে মামলার কথা জানিয়ে পালিয়ে থাকতে বলেছিলেন। ফলে তিনি গৌরনদী থেকে পালিয়ে ঢাকায় চলে যান। সেখানে বিয়ে করে স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে তাই তিনি আত্মগোপনে ছিলেন।

ওই মামলায় কলাবাড়িয়া গ্রামের এস রহমান মৃধা (৫৫), তাঁর ছেলে আরমান মৃধা (২৬), রায়হান (২৩), স্থানীয় শাহীন মল্লিক (৩০), হক ভূঁইয়া (৭০), তাঁর ছেলে মবিন ভূঁইয়াসহ (২৮) ১৩ জনকে আসামি করা হয়েছিল। ২০১৩ সালের শেষের দিকে ১৩ আসামির বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দেয় পুলিশ। মামলার ৪ আসামি জেল খেটে এখন জামিনে আছেন। বাকি ৯ আসামি পালিয়ে বেড়াচ্ছেন।

রাসেলকে বুধবার বরিশাল নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে হাজির করে পুলিশ। আদালতের বিচারক আবু শামীম আজাদ একটি অপহরণের মামলার পরোয়ানাভুক্ত আসামি হিসেবে রাসেলকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

গৌরনদী মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) হেলাল উদ্দীন বলেন, আদালতের নির্দেশনা মোতাবেক পরবর্তী ব্যবস্থা নেবে পুলিশ।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন