বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই কাদের মির্জা বলেন, ‘আমি দল থেকে ইতিমধ্যে পদত্যাগ করেছি। এই প্রশ্নে আমি আপস করব না। আমার বক্তব্য স্পষ্ট। আমি দলের কোনো পদ-পদবি চাই না। আমি ভবিষ্যতে আর কোনো নির্বাচনে অংশ নেব না।’ ভাইয়ের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠন এখানে আছে, সেটা ওবায়দুল কাদের সাহেবের সংসার। ওনার সংসার উনি কাকে দিয়ে চালাবেন, সেটা তিনি জানেন। আমি বঙ্গবন্ধু শিক্ষা ও গবেষণা পরিষদ নামে একটি সংগঠনের সঙ্গে আছি। আমি এখান থেকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের প্রচার করব, আওয়ামী লীগকে সহযোগিতা করব।’

গত সোমবার দুর্বৃত্তদের হামলা-গুলিতে মারাত্মকভাবে আহত হন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নুর নবী চৌধুরী। কাদের মির্জার অনুসারীদের বিরুদ্ধে ওই হামলার অভিযোগ উঠেছে। ওই ঘটনায় ইতিমধ্যে কাদের মির্জার ছয়জন অনুসারীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

গতকাল মঙ্গলবার গ্রেপ্তার ছয়জন অনুসারীর একজন নাজিম উদ্দিন ওরফে মিকনকে ক্রসফায়ারে দেওয়া হতে পারে—এমন আশঙ্কা প্রকাশ করে কাদের মির্জা ফেসবুক লাইভে এসে ‘হত্যার বদলে হত্যার’ হুমকি দিয়েছিলেন। সাড়ে চৌদ্দ ঘণ্টার মাথায় বক্তব্য থেকে সরে এসে শান্তি ও রাজনৈতিক সহাবস্থানের আহ্বানের কারণ কী জানার জন্য আজ দুপুরে কাদের মির্জার মুঠোফোনে ফোন দিলে স্বপন মাহমুদ নামের একজন ফোন ধরেন। তিনি বলেন, মেয়র মহোদয় ঘুমাচ্ছেন।

পরে কাদের মির্জার শান্তির প্রস্তাবের বিষয়ে প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি খিজির হায়াত খান প্রথম আলোকে বলেন, ‘কাদের মির্জা একজন পাগল। তাঁর কোনো কথাই এখন আমরা বিশ্বাস করি না। তিনি সকালে এক কথা, বিকেলে এক কথা বলেন। একসময় আমরা কোম্পানীগঞ্জে শতভাগ দলীয় নেতা-কর্মী তাঁর কথায় চললেও এখন শতভাগ নেতা কর্মী তাঁর বিপক্ষে। তাঁর আসলে চিকিৎসা প্রয়োজন।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন