বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

১৮ অক্টোবর বিকেলে দিরাই উপজেলার ভাটিপাড়া গ্রামের পাশের উদির হাওর জলমহালের দখল নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এতে ওই গ্রামের যুক্তরাষ্ট্রপ্রবাসী কাজল নূর পক্ষের রুহেদ মিয়া (৪০) মারা যান। আহন হন অন্তত ২০ জন।

অভিযোগ আছে, স্থানীয় একটি মৎস্যজীবী সমবায় সমিতির নামে ওই জলমহাল ইজারা নিলেও এর পেছনে রয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক প্রদীপ রায়। তিনিই এটি নিয়ন্ত্রণ করেন। ভাটিপাড়া গ্রামে তাঁর পক্ষে নেতৃত্ব দেন শাহ আলম। কাজল নূরের চাচাতো ভাই সংঘর্ষে নিহত রুহেদ মিয়া। ঘটনার পাঁচ দিন পর নিহত রুহেদ মিয়ার ভাই সুহেদ মিয়া, প্রদীপ রায়সহ ৭৩ জনকে আসামি করে দিরাই থানায় একটি হত্যা মামলা করেন।

পুলিশ জানায়, এই মামলায় পুলিশ একজনকে গ্রেপ্তার করে। এ ছাড়া মামলার ৩২ জন আসামি আদালতে আত্মসমর্পণ করেছেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা দিরাই থানা পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) আজিজুর রহমান জানান, পুলিশ প্রদীপ রায়কে পাঁচ দিনের রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করে। শুনানি শেষে আদালত দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এই মামলা ছাড়াও প্রদীপ রায় আরও একটি হত্যার মামলার আসামি। ২০১৭ সালের ১৭ জানুয়ারি দিরাই উপজেলার জারলিয়া জলমহালের দখল নিয়ে স্থানীয় আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হয়ে তিনজনের মৃত্যু হয়। ওই ঘটনায় পরে প্রদীপ রায়, দিরাই পৌরসভার তৎকালীন মেয়র মোশাররফ মিয়া, দিরাই উপজেলা পরিষদের তৎকালীন চেয়ারম্যান হাফিজুর রহমান তালুকদারসহ ৩৯ জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা হয়। ওই মামলায় প্রদীপ রায় জামিনে ছিলেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন