default-image

হবিগঞ্জের লাখাই উপজেলার গুনিপুর গ্রামে সন্দেহভাজন দুই ডাকাত গণপিটুনিতে নিহত হয়েছে। গতকাল শনিবার মধ্যরাতে এ ঘটনা ঘটে। আজ রোববার সকালে পুলিশ লাশ দুটি একটি হাওর থেকে উদ্ধার করেছে। নিহত দুজনের মধ্যে একজনের পরিচয় শনাক্ত করা গেছে।

লাখাই থানার পুলিশের ভাষ্য, লাখাই উপজেলার গুনিপুর গ্রামের আবদুল হকের বাড়িতে গতকাল শনিবার ৯ থেকে ১০ জনের একটি ডাকাত দল হানা দেয়। এ সময় বাড়ির লোকজন ডাকাতদের উপস্থিতি আঁচ করতে পেরে চিৎকার শুরু করেন। আশপাশের লোকজন ঘটনাস্থলে ছুটে গেলে ডাকাত দলের সদস্যরা পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। দলের বেশির ভাগ সদস্য পালিয়ে যেতে সক্ষম হলেও দুজন পালাতে পারেনি। তাদের ঘিরে ফেলেন গ্রামবাসী। উত্তেজিত লোকজন তাদের লাঠিসোঁটা দিয়ে পেটাতে থাকেন। ঘটনাস্থলেই দুজন মারা যায়। একজনের নাম হুমায়ুন মিয়া (৩০)। তাঁর বাড়ি জেলার মাধবপুর উপজেলার বাঘাসুরা গ্রামে। নিহত (৩৪) আরেকজনের পরিচয় এখনো শনাক্ত করতে পারেনি পুলিশ।

বিজ্ঞাপন

গুনিপুর গ্রামের কামাল মিয়া বলেন, মধ্যরাতে ডাকাত দল ধারালো অস্ত্র নিয়ে গ্রামের কৃষক আবদুল হকের বাড়িতে হানা দেয়। বাড়ির লোকজন ‘ডাকাত, ডাকাত’ বলে চিৎকার শুরু করলে প্রতিবেশীরা লাঠিসোঁটা নিয়ে ওই বাড়িতে জড়ো হন। সন্দেহভাজন দুই ডাকাতকে ধাওয়া করে গ্রামের পাশে হাওরে গিয়ে আটকান গ্রামবাসী।

লাখাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাইদুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, ডাকাতির উদ্দেশ্যে এক দল ডাকাত গুনিপুর গ্রামে গতকাল দিবাগত রাত দেড়টায় হানা দেয়। গ্রামবাসী ডাকাতদের ধাওয়া করে দুই ডাকাতকে আটক করেন। পরে উত্তেজিত লোকজন তাদের পিটিয়ে হত্যা করেন।

এলাকার জনপ্রতিনিধিরা পুলিশকে খবর দিলে আজ সকালে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে হাওর থেকে দুটি লাশ উদ্ধার করে। লাশ লাখাই থানায় সুরতহাল শেষে ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতালে পাঠানো হবে বলে ওসি জানান।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন