স্থানীয় বাসিন্দা ও পুলিশ জানায়, মুসা মিয়ার সঙ্গে সালাহ উদ্দিনের জমিসংক্রান্ত বিরোধ চলছিল। এ নিয়ে এর আগেও তাঁদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। গত বছর মুসা তাঁর ভাগনে সালাহ উদ্দিনকে কুপিয়ে আহত করেছিলেন। এ ঘটনার পর মুসা ছয় মাস কারাগারে ছিলেন। গত ৪ মার্চ তিনি জামিনে বের হয়ে আসেন।

পরিবারের বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, গতকাল রাত ১০টার দিকে অটোরিকশাটি গ্যারেজে রেখে মুসা বাড়িতে ফিরছিলেন। এ সময় বাড়ির সামনে চার থেকে পাঁচজন ব্যক্তি মুসার ওপর হামলা করে। হামলাকারীরা মুসাকে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। নিহত ব্যক্তির পরিবার দাবি করছে, হামলাকরীদের মধ্যে সালাহ উদ্দিনও ছিলেন।

হাটহাজারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মুহাম্মদ রফিকুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, জমির ভাগ-বাঁটোয়ারা নিয়ে মামা-ভাগনের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ ছিল। এ নিয়ে মামলা হয়েছে। সেই মামলায় মুসা ছয় মাস জেল খেটে গত মার্চে জামিন পেয়েছেন। এর প্রতিশোধ নিতে মুসাকে সালাহ উদ্দিন পরিকল্পিতভাবে কুপিয়ে হত্যা করেছেন বলে পরিবারের লোকজন দাবি করছেন। তবে পরিবারের পক্ষ থেকে এ বিষয়ে কোনো লিখিত অভিযোগ দেওয়া হয়নি। নিহত ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন