বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এজাহারের বরাতে কাটাখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এস এম সিদ্দিকুর রহমান আজ দুপুরের দিকে জানান, ভরত একজন মাদক ব্যবসায়ী। শনিবার রাতে তিনি ১০০ বোতল ফেনসিডিল নিয়ে বাংলাদেশে ঢোকেন। এরপর তিনি বিজিবির ১০ নম্বর পদ্মার চর সীমান্ত ফাঁড়ির সদস্যদের হাতে ধরা পড়েন।

ওসি সিদ্দিকুর রহমান জানান, আটকের পর বিজিবি সদস্যরা তাঁকে নৌকায় করে আনছিলেন। এ সময় পালানোর জন্য হাতকড়া পরা অবস্থায় তিনি নদীতে ঝাঁপ দেন। এতে পানিতে ডুবে তাঁর মৃত্যু হয়। এরপর আজ ভোরে বিজিবি লাশ পাওয়ার কথা পুলিশকে জানায়। দুপুরে বিজিবি একটি অপমৃত্যুর মামলাও করে। পরে পুলিশ ও একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন প্রস্তুত করতে ঘটনাস্থলের উদ্দেশে রওনা হন।

ওসি সিদ্দিকুর রহমান আরও জানান, অপমৃত্যুর মামলাটি নৌ পুলিশ তদন্ত করবে। আর ভরতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্ত করা হবে। তারপর এ বিষয়ে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

বিজিবির রাজশাহী ১ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল সাব্বির আহমেদ প্রথম আলোকে বলেন, ভারতীয় ওই মাদক ব্যবসায়ী ফেনসিডিলসহ রাজশাহী সীমান্তের ১০ নম্বর চরের খয়ের বাগানে এলাকায় বাংলাদেশের অভ্যন্তরে বিজিবির হাতে ধরা পড়েন। তাঁকে পুলিশে সোপর্দ করার জন্য নৌকায় করে আনার সময় তিনি বিজিবির এক সদস্যকে ধাক্কা দিয়ে পদ্মা নদীতে ঝাঁপ দেন। রাতে তাঁর লাশ খুঁজে পাওয়া যায়নি। সকালে তাঁর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। বিষয়টি পুলিশকে জানানো হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন