হাতজাল পদ্ধতিতে কীটনাশকমুক্ত ধানচাষে সফলতা

বিজ্ঞাপন
default-image

কীটনাশক ছাড়া ধান উৎপাদনে হাতজাল (পার্চিং) পদ্ধতি ব্যবহার করে সফলতা পেয়েছেন বরিশাল ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের গবেষকেরা। এবার বোরো মৌসুমে তাঁরা ১৫ হেক্টর জমিতে এই প্রযুক্তি ব্যবহার করে সফলতা পান।

বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের (ব্রি) গবেষকেরা বলেন, এই পদ্ধতি মাঠপর্যায়ে ছড়িয়ে দিতে পারলে কৃষকদের উৎপাদন ব্যয় কমবে এবং পরিবেশ ও জনস্বাস্থ্য সুরক্ষা পাবে।

হাতজাল পদ্ধতিটি হচ্ছে মূলত চিকন রড অথবা বাঁশের কঞ্চি দিয়ে তোলাকৃতির হাতলওয়ালা বেড় তৈরি করে তাতে জাল লাগিয়ে ফসলের খেতে ডানে-বামে ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে পোকা ধরার একটি স্থানীয় পদ্ধতি। এই হাতজাল দিয়ে খেত পোকামুক্ত করার পদ্ধতিকে সুইপিং বলে।

কৃষি বিভাগের তথ্য অনুযায়ী, প্রতিবছর দক্ষিণাঞ্চলে ধানের উৎপাদন বৃদ্ধি পাচ্ছে। গত অর্থবছরে তিন মৌসুম মিলে (আমন, বোরো, আউশ) প্রায় ২৮ হাজার মেট্রিক টন চাল উৎপাদন হয়েছে। এবার তা আরও বেড়ে প্রায় ৩০ হাজার মেট্রিক টনে পৌঁছাবে বলে কৃষি বিভাগ আশা করছে।
ব্রির আঞ্চলিক কার্যালয় বরিশালের বিজ্ঞানীরা বলছেন, ধানখেতে ক্ষতিকর পোকা দমনে এবারই তাঁরা পরীক্ষামূলকভাবে ব্যাপক ভিত্তিতে ধানের আবাদ করেন। বোরো মৌসুমে বরিশাল নগরের সাগরদি এলাকার ধান গবেষণা ইনস্টিটিউটের অভ্যন্তরে এবং সদর উপজেলার চর বদনা এলাকায় ১৫ হেক্টর জমিতে কীটনাশক ছাড়া দুটি প্রদর্শনী খেত করেন। এতে ব্রি ধান ২৮, ব্রি ধান ২৯, ব্রি ধান ৪৭, ব্রি ধান ৫৮, ব্রি ধান ৬৭, ব্রি ধান ৭৪, ব্রি ধান ৮৮, ব্রি ধান ৮৯ আবাদ করেন। এই দুটি খেতে ডাল পুঁতে এতে হাতজাল প্রযুক্তি ব্যবহার করে কীটনাশক ছাড়াই ফসল উৎপাদনে তাঁরা সফলতা পেয়েছেন। এতে হেক্টরপ্রতি ৫ থেকে ৬ মেট্রিক টন পর্যন্ত শস্য উৎপাদন হয়েছে।

কৃষি বিভাগ বলছে, ধানের আবাদ করার সময় কৃষকেরা সাধারণত গড়ে তিনবার খেতে কীটনাশক প্রয়োগ করেন। মাজরা, পাতামোড়ানো, বাদামি গাছফড়িং ও গান্ধি পোকার আক্রমণ থেকে রক্ষা পেতে কৃষকেরা এই বালাইনাশক ব্যবহার করেন।
ব্রি সূত্র জানায়, বীজতলা থেকে ধানের জমিতে চারা রোপণের ১০ দিন পর প্রতি ১০০ বর্গমিটারে একটি করে গাছের ডালপালা পুঁতে দেওয়া হয়েছিল। এরপর হাতজাল দিয়ে পার্চিং করে ক্ষতিকর এসব পোকা নিধন ও উপকারী পোকা সৃজনের ব্যবস্থা করা হয়।
ব্রি বরিশালের ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা কীটতত্ত্ববিদ মনিরুজ্জামান প্রথম আলোকে বলেন, দক্ষিণাঞ্চলের ধানখেতে মূলত মাজরা পোকার আক্রমণ বেশি। সকালের নরম আলোয় মাজরা পোকার মথ (পূর্ণবয়স্ক মাজরা পোকা) ধানের পাতার ওপরের দিকে বসে থাকে।
তিনি বলেন, ‘গবেষণায় দেখা যায়, সকাল সকাল হাতজাল দিয়ে সুইপ করলে পোকা দমনে সফলতা বেশি পাওয়া যায়। মূলত এবার আমরা পরীক্ষামূলকভাবে প্রযুক্তিটি ব্যবহার করে ব্যাপক সফলতা পেয়েছি। এখন আমরা চাই প্রযুক্তিটি কৃষকদের মধ্যে মাঠপর্যায়ে ছড়িয়ে দিতে।’
ব্রির গবেষকেরা জানান, চারা রোপণের ১৪ দিন পর থেকে ধানের শিষ বের হওয়ার আগ পর্যন্ত প্রতি সপ্তাহে একবার হাতজাল দিয়ে সুইপিং করে ক্ষতিকর ও উপকারী পোকার তথ্য সংগ্রহ করেন তাঁরা। এরপর জাল দিয়ে সুইপিং করে সেসব পোকা ধরে ক্ষতিকর পোকা মেরে ফেলা এবং উপকারী পোকা খেতে পুনরায় ছেড়ে দেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়। এতে ধানের খেতে উপকারী পোকামাকড়ের সংখ্যা দ্রুত বৃদ্ধি পায় এবং ক্ষতিকর পোকামাকড় দমন হয়।
২৬৬ প্রজাতির ক্ষতিকর পোকা
ব্রির এক গবেষণা বলছে, দেশে ধানখেতে ২৬৬ প্রজাতির ক্ষতিকর পোকা শনাক্ত করা হয়েছে। এদের মধ্যে ২০ থেকে ৩৩টি প্রজাতিকে প্রধান অনিষ্টকারী পোকা হিসেবে ধরা হয়। এসব পোকার আক্রমণে দেশে বোরো মৌসুমে প্রায় ১৩ শতাংশ, আউশ মৌসুমে প্রায় ২৪ শতাংশ এবং রোপা আমন মৌসুমে প্রায় ১৮ শতাংশ ফলন নষ্ট হয়। আর তিন মৌসুমে দেশে পোকার আক্রমণে গড়ে ১৮ ভাগ পর্যন্ত ফলন ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

default-image

ব্রির কীটতত্ত্ব বিভাগের এক গবেষণার তথ্য অনুযায়ী কৃষকেরা এক মৌসুমে ধান উৎপাদনে গড়ে সাধারণত তিনবার কীটনাশক ব্যবহার করে থাকে।
কীটতত্ত্ব বিভাগের ওই গবেষণায় বলা হয়, শুধু ক্ষতিকর পোকা দমনে প্রতিবছর দেশে ৩৫ থেকে ৪০ হাজার মেট্রিক টন উচ্চমাত্রার কীটনাশক ব্যবহার হয়। ২০১৪ সালে মাঠপর্যায়ে জরিপ করে সংস্থাটির গবেষকেরা দেখেছেন, ওই বছর দেশে ৩৯ হাজার ৪৬৪ মেট্রিক টন কীটনাশক ব্যবহার হয়। এর ৮০ ভাগই ব্যবহার হয়েছে ধানখেতে।
হাতজাল দিয়ে সুইপিং করে ক্ষতিকর মাজরা পোকা, পাতামাছি, পামরি পোকা, পাতা মোড়ানো পোকা, চুঙ্গি পোকা, লেদা পোকা, ঘাস ফড়িং, লম্বাশুঁড় উরচুঙ্গা, সবুজ পাতা ফড়িং, বাদামি গাছফড়িং, সাদাপীঠ গাছফড়িং, গান্ধি পোকা ধরা পড়ে। সেই সঙ্গে উপকারী পোকামাকড় যেমন লেডি বার্ড বিটল, স্ট্যাফিলিনিড বিটল, ক্যারাবিড বিটল, মাকড়সা, ড্রাগন ফ্লাই, ডেমসেল ফ্লাই ইত্যাদি উপকারী পোকাও ধরা পড়ে। ক্ষতিকর ও উপকারী পোকা বাছাই করে উপকারী পোকাদের খেতে ছেড়ে দেওয়া হয়। আর ক্ষতিকর পোকা মেরে ফেলা হয়। ধানের ক্ষতিকর পোকা দেখতে সাদা ও বাদামি রঙের হয়ে থাকে। অন্যদিকে উপকারী পোকা দেখতে রঙিন হয়। ধানের উপকারী পোকা মূলত ক্ষতিকর পোকার বাচ্চা ও ডিম খেয়ে থাকে বাঁচে।

হাতজাল পদ্ধতি সম্পর্কে ব্রি, বরিশাল আঞ্চলিক কার্যালয়ের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মো. আলমগীর হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, ‘সদ্য সমাপ্ত বোরো মৌসুমে আমরা পরীক্ষামূলকভাবে হাতজাল দিয়ে পার্চিং প্রযুক্তিটি ব্যবহার করে আশানুরূপ সফলতা পেয়েছি। পরিবেশবান্ধব এ প্রযুক্তিটি কৃষকদের মাঠে দ্রুত সম্প্রসারণ করা গেলে দক্ষিণাঞ্চলের কৃষিতে বৈপ্লবিক পরিবর্তন আসবে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন