বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

কোস্টগার্ড সূত্রে জানা গেছে, জলদস্যু হাসান বাহিনীর সদস্যরা নিঝুম দ্বীপের সিডিএসপি বাজারের কাছে গোপন আস্তানায় বসে নদীতে ডাকাতি ও আসন্ন ইউপি নির্বাচনে সহিংসতার পরিকল্পনা করছেন, এমন সংবাদের ভিত্তিতে কোস্টগার্ডের একটি দল গতকাল রাত সাড়ে নয়টার দিকে সেখানে অভিযান চালায়। এ সময় হাসান বাহিনীর সদস্যরা টের পেয়ে কোস্টগার্ড সদস্যদের লক্ষ্য করে গুলি ছুড়তে থাকেন। জবাবে কোস্টগার্ড সদস্যরাও পাল্টা পাঁচটি গুলি ছোড়েন। একপর্যায়ে হাসান বাহিনীর সদস্যরা পালিয়ে যাওয়ার সময় বাহিনীর প্রধান হাসানকে আটক করেন কোস্টগার্ড সদস্যরা। এ সময় তাঁর কাছ থেকে একটি একনলা বন্দুক, দুটি গুলি ও তিনটি অবৈধ পাইরোটেকনিক উদ্ধার করা হয়।

হাসান নিঝুম দ্বীপের মদিনা গ্রামের শফিউল্লাহর ছেলে। তাঁর বিরুদ্ধে হাতিয়া থানায় একাধিক ডাকাতি মামলা ছাড়াও আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে হাতিয়ায় সহিংসতার পরিকল্পনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগ রয়েছে। পাশাপাশি তাঁর বিরুদ্ধে বিভিন্ন এলাকায় ভোটারদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে বেআইনি অস্ত্র দেখিয়ে ভয়ভীতি প্রদর্শনের অভিযোগ রয়েছে। আইনি প্রক্রিয়া শেষে আজ শুক্রবার তাঁকে হাতিয়া থানায় সোপর্দ করা হবে।

জানতে চাইলে কোস্টগার্ডের হাতিয়া স্টেশনের কমান্ডার এ এস এম লুৎফর রহমান আজ সকালে প্রথম আলোকে বলেন, জলদস্যু হাসান বাহিনীর নদীতে ডাকাতি ও ইউপি নির্বাচনে সহিংসতার জন্য গোপন বৈঠকের খবর পেয়ে গতকাল রাতে তিনিসহ নিঝুম দ্বীপের সিডিএসপি বাজার এলাকায় অভিযান পরিচালনা করেন। এ সময় কোস্টগার্ডের উপস্থিতি টের পেয়ে হাসান বাহিনীর সদস্যরা গুলি ছুড়ে পালানোর চেষ্টা করেন। জবাবে কোস্টগার্ড আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি করে। এ সময় হাসান বাহিনীর প্রধান হাসানকে অস্ত্র, গুলিসহ আটক করা হয়।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন