বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

নৌযান না চলার কারণে হাতিয়ার চেয়ারম্যানঘাট থেকে জেলা শহরে ফিরে আসা একটি বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থার ব্যবস্থাপক নুরুল আমিন আজ দুপুরে প্রথম আলোকে বলেন, সংস্থার জরুরি কাজে হাতিয়ায় যাওয়ার উদ্দেশে সকালে তিনি চেয়ারম্যানঘাট যান। সেখানে গিয়ে জানতে পারেন উপকূলে ৩ নম্বর সংকেত থাকায় অভ্যন্তরীণ রুটে চলাচলকারী ট্রলার ও স্পিডবোট বন্ধ রাখা হয়েছে। এ কারণে বাধ্য হয়ে তিনি দুপুরে জেলা শহরে ফিরে আসেন। তাঁর মতো এ রকম অনেকেই হাতিয়ায় যাওয়ার জন্য চেয়ারম্যানঘাট গিয়ে ফিরে এসেছেন বলে জানালেন তিনি।

এদিকে ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদের প্রভাবে গতকাল রাত থেকে নোয়াখালীতে কখনো হালকা, কখনো মাঝারি, আবার কখনো গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হচ্ছে। বৃষ্টির কারণে লোকজনের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা ব্যাহত হচ্ছে। অনেকেই বৃষ্টিতে গৃহবন্দী অবস্থায় দিন কাটাচ্ছেন। হঠাৎ বৃষ্টিতে স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থীদের বেশি ভোগান্তির শিকার হতে হয়েছে। বৈরী আবহাওয়ার কারণে আজ জেলা শহরে লোকজনের চলাচল ছিল অন্যান্য দিনের তুলনায় কম।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের জেলা পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. রফিকুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, গতকাল রাত থেকে আজ বেলা ৩টা পর্যন্ত ৬১ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। আগামীকাল মঙ্গলবার পর্যন্ত বৃষ্টিপাত অব্যাহত থাকার সম্ভাবনা আছে।

হাতিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ সেলিম হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদের কারণে উপকূলীয় এলাকায় ৩ নম্বর সতর্কতা সংকেত বলবৎ আছে। এ কারণে গতকাল সকাল থেকে হাতিয়ার সঙ্গে ঢাকার এবং আজ সকাল থেকে হাতিয়ার সঙ্গে অভ্যন্তরীণ নৌ যোগাযোগ বন্ধ রাখা হয়েছে। সতর্কতা সংকেত তুলে নেওয়ার পর নৌ যোগাযোগ স্বাভাবিক হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন