default-image

সালিসের জেরে হামলায় লালমনিরহাটের কালীগঞ্জের মদাতী ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান আবদুল কাদের আহত হয়েছেন। আজ বুধবার দুপুরে ইউনিয়ন পরিষদে এ ঘটনা ঘটে। চেয়ারম্যানকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
এ ঘটনায় নেছার উদ্দিন (৪৫) নামের এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তিনি ওই ইউনিয়নের বাবুর ডাঙ্গা গ্রামের ছকমাল হোসেনের ছেলে। নেছারের চায়ের দোকান রয়েছে।
পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, নেছার উদ্দিনের সঙ্গে তাঁর ভাই ইয়াকুব আলীর জমিজমাসংক্রান্ত বিষয়ে বিরোধ রয়েছে। ওই ঘটনায় ইয়াকুব আলী লিখিতভাবে মদাতী ইউপির চেয়ারম্যান বরাবরে একটি অভিযোগ দেন। এ পরিপ্রেক্ষিতে মঙ্গলবার সালিসে নেছার উদ্দিনকে ১ লাখ ২০ হাজার টাকা পরিশোধ করার সিদ্ধান্ত দেন চেয়ারম্যান আবদুল কাদের। তবে ওই দিন তিনি টাকা দেননি। আজ দুপুরে ইউনিয়ন পরিষদে অন্য একটি সালিস চলার সময় নেছার উদ্দিন হঠাৎ করে চেয়ারম্যান কাদেরকে কিলঘুষি মারতে শুরু করেন। এ সময় চেয়ারম্যানের নাক ফেটে রক্ত বের হয়। ইউপি সদস্যরা চেয়ারম্যানকে উদ্ধার করে কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান।

বিজ্ঞাপন

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল কাদের বলেন, ‘এভাবে কেউ আমার ওপর হামলা করতে পারে, কখনো চিন্তাও করিনি। জনগণের জন্য কাজ করে শ্রেষ্ঠ চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছি। অথচ আমাকে এভাবে অপমানের শিকার হতে হলো। মামলা করা হয়েছে। দোষী ব্যক্তি গ্রেপ্তার হয়েছেন। আইন নিজস্ব গতিতে চলবে, এটাই কামনা করছি।’
কালীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আরজু মো. সাজ্জাদ হোসেন জানান, এ ঘটনায় বিকেলে একজন ইউপি সদস্য বাদী হয়ে মামলা করেছেন। ওই মামলায় নেছার উদ্দিনকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

মন্তব্য পড়ুন 0