বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

নাজমা আক্তার নামের ওই নারী বলেন, তিনি খুবই অসহায়। স্বামী তাঁকে তালাক দিয়ে অন্যত্র বিয়ে করেছেন। ওই ব্যাগে যে স্বর্ণালংকার ছিল, এটাই তাঁর শেষ সম্বল। ব্যাগে এক হাজার ২৫ টাকা ছিল। তিনি ওই এএসআইয়ের কাছে কৃতজ্ঞ। আজ থেকে পুলিশ সম্পর্কে তাঁর ধারণা পাল্টে গেছে।

সখীপুর থানার এএসআই আবদুল হাকিম বলেন, এর আগেও তিনি কিছু টাকা কুড়িয়ে পেয়েছিলেন। সেই টাকাও তিনি থানায় জমা রেখেছিলাম। এক মাস পার হওয়ার পর টাকার মালিক না পাওয়ায় ওসির পরামর্শে থানার মসজিদে দেওয়া হয়েছিল। ওই অসহায় নারীকে তাঁর স্বর্ণালংকার ও টাকা ফিরিয়ে দিতে পেরে খুবই ভালো লাগছে।

সখীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ কে সাইদুল হক ভূঁইয়া প্রথম আলোকে বলেন, ‘তাঁর (আবদুল হাকিম) এ সততার জন্য আমরা তাঁকে অভিনন্দন জানিয়েছি। পরবর্তী সময়ে তাঁকে পুরস্কৃত করা হবে।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন