মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, দাউল বারবাকপুর উচ্চবিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক আমোদিনী পাল তাঁর বিরুদ্ধে হিজাব নিয়ে মিথ্যা তথ্য ছড়িয়ে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত, তাঁকে সামাজিকভাবে হেয় করা ও বেআইনিভাবে দলবদ্ধ হয়ে হামলার অভিযোগে পাঁচজনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাত ২০ থেকে ২৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেন।

এর আগে দাউল বারবাকপুর উচ্চবিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের পেটানোর অভিযোগ তুলে বিদ্যালয়ে হামলার ঘটনার তিন দিন পর ১০ এপ্রিল থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন ধরনী কান্ত বর্মণ। জিডিতে ওই হামলার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগ করা হয় অজ্ঞাতনামা ১৪০ থেকে ১৫০ জনের বিরুদ্ধে।

৮ এপ্রিল হিজাব না পরায় আমোদিনী পাল শিক্ষার্থীদের মারধর করেছেন অভিযোগ তুলে পরের দিন ওই বিদ্যালয়ে হামলার ঘটনা ঘটে। পরে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ওই হামলার ভিডিও ভাইরাল হয়।
বিদ্যালয়ে হামলার ঘটনায় প্রশাসনের করা তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি ১১ এপ্রিল তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেন। তদন্তে হিজাব পরায় ছাত্রীদের পেটানোর অভিযোগের কোনো সত্যতা পায়নি তদন্ত কমিটি।

স্কুলড্রেস পরে না আসার কারণে ওই দিন শিক্ষিকা আমোদিনী পাল ও আরেক শিক্ষক বদিউল আলম শিক্ষার্থীদের পিটিয়েছেন বলে তদন্ত প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়। আমোদিনী পালের সঙ্গে প্রধান শিক্ষক ধরনী কান্ত বর্মণের দ্বন্দ্ব ও বিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা কমিটির অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বের কারণে এই গুজব ছড়ানো হয় বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন