default-image

দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দরে ভারতের পণ্যবাহী ট্রাকের চালক ও চালকের সহকারীদের আর শুল্ক স্টেশনে ট্রাক থেকে নামতে দেওয়া হচ্ছে না। শুল্ক স্টেশনের নিয়োজিত লোকজনই ঝুড়িতে করে ভারতের পণ্যবাহী ট্রাকের চালান নিয়ে আসছেন। আজ বৃহস্পতিবার বেলা আড়াইটা থেকে সাড়ে তিনটা পর্যন্ত হিলি স্থলবন্দরের শুল্ক স্টেশনে অবস্থান করে এ চিত্র দেখা গেছে।

আর আগে গত মঙ্গলবার ভারতের পণ্যবাহী ট্রাকের চালক ও সহকারীরা ট্রাক থেকে নেমে নিজেরাই শুল্ক স্টেশনে গিয়ে কাগজপত্র দেখাচ্ছিলেন। ভারতের পণ্যবাহী ট্রাকের চালক ও সহকারীদের মাধ্যমে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা করা হচ্ছিল। এ নিয়ে গত মঙ্গল ও বুধবার প্রথম আলোর অনলাইন ও ছাপা সংস্করণে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। এরপর থেকেই হিলি স্থলবন্দর ও শুল্ক স্টেশন কর্তৃপক্ষ ভারতীয় ট্রাকের চালকদের ট্রাক থেকে আর নামতে দিচ্ছে না বলে জানিয়েছে। তবে হিলি স্থলবন্দরের পানামা পোর্টের ভেতরে ভারতীয় ট্রাকচালক ও সহকারীদের ঘোরাফেরা করতে দেখা গেছে।

ভারতের পণ্যবাহী ট্রাকের চালক ও সহকারীদের মাধ্যমে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা করা হচ্ছিল। এ নিয়ে গত মঙ্গল ও বুধবার প্রথম আলোর অনলাইন ও ছাপা সংস্করণে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।

হিলি স্থলবন্দরে অবস্থান করে দেখা গেছে, ভারতের পণ্যবাহী ট্রাকগুলো হিলি স্থলবন্দরে প্রবেশ করেই শুল্ক স্টেশনে এসে থামছে। এক তরুণ ব্যাডমিন্টন র‌্যাকেটে বাঁধা প্লাস্টিকের ঝুড়ি নিয়ে এসব ট্রাকের সামনে ধরছেন। ভারতের পণ্যের ট্রাকের চালক ও সহকারীরা প্লাস্টিকের ঝুড়িতে চালানের কাগজ দিচ্ছেন। ওই তরুণ শুল্ক স্টেশনে কাগজ এনে হাত স্যানিটাইজ করার পর কাউন্টারে দিচ্ছেন। কাগজপত্র ছাড়ার পর ওই তরুণ ট্রাকচালককে পৌঁছে দিচ্ছেন। সুমন নামের ওই তরুণ বলেন, ‘ভারতে কারোনা পরিস্থিতি খারাপ হওয়ার কারণে হিলি স্থলবন্দরের অভ্যন্তরে ভারতের পণ্যবাহী ট্রাকের চালক ও সহকারীদের ওঠানামায় নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। তারপরও ট্রাকচালক ও সহকারীরা ট্রাক থেকে নামছিলেন। সংবাদ প্রকাশের পর কর্তৃপক্ষ এ ব্যাপারে কড়াকড়ি আরোপ করেছে। আমরা নিজেরা ঝুড়ি নিয়ে ট্রাক থেকে কাগজপত্র নিয়ে আসছি, আবার পৌঁছে দিচ্ছি।’

বিজ্ঞাপন

শুল্ক স্টেশনের কাউন্টারে থাকা সিপাই আবু সাঈদ মণ্ডল প্রথম আলোকে জানান, বৃহস্পতিবার সকাল ৯টা থেকে বেলা ৩টা পর্যন্ত ১৩৯টি পণ্যবাহী ট্রাক স্থলবন্দরে প্রবেশ করেছে।

পানামা পোর্টের ব্যবস্থাপক (অপারেশন) অসিত কুমার সান্যাল বলেন, পোর্টের ভেতরে ভারতীয় ট্রাকের চালকদের জন্য আলাদা শৌচাগার ও গোসলখানার ব্যবস্থা করা হয়েছে। ভারতের ট্রাকের চালকেরা ট্রাকের ভেতরেই বিশ্রাম নিচ্ছেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন