default-image

কিশোরগঞ্জের হোসেনপুরে দাখিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ আমিনুল হক হত্যা মামলার এক আসামিকে ফাঁসি ও তাঁর বাবাকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। প্রথম অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মুহাম্মদ আবদুর রহিম আজ বুধবার সকালে এ রায় দেন।

দণ্ডপ্রাপ্ত দুই আসামির প্রত্যেককে দুই লাখ টাকা করে আর্থিক জরিমানা ও অনাদায়ে অতিরিক্ত এক বছর করে বিনাশ্রম কারাদণ্ডও দেওয়া হয়েছে। ফাঁসির সাজাপ্রাপ্ত আসামি মানিক মিয়া পলাতক। তবে তাঁর বাবা নুরুল করিম রায় ঘোষণার সময় আদালতে উপস্থিত ছিলেন। আসামিদের বাড়ি হোসেনপুর উপজেলার জিনারী ইউনিয়নের গাবুরগাঁও গ্রামে।

বিজ্ঞাপন

মামলার বরাত দিয়ে রাষ্ট্রপক্ষের এপিপি আবু সাঈদ ইমাম জানান, অধ্যক্ষ আমিনুল হকের বাড়ি ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার মহিষজোড়া গ্রামে। তিনি হোসেনপুরে জিনারী গ্রামে একটি দাখিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ হিসেবে চাকরি করতেন। ২০০৯ সালের ১৪ ডিসেম্বর ক্রিকেট খেলা নিয়ে বিরোধকে কেন্দ্র করে আসামি মানিক মিয়া আমিনুল হকের ছেলে রক্সিকে মারধর করে বাড়িতে নিয়ে বেঁধে রাখেন। খবর পেয়ে আমিনুল হক ঘটনাস্থলে যান। কথা-কাটাকাটির সময় মানিক ও তাঁর বাবা নুরুল করিম মিলে আমিনুলকে মারধর করেন। একপর্যায়ে মানিক ছুরি দিয়ে আমিনুল হকের বুকে আঘাত করেন।

গুরুতর আহত আমিনুল হককে প্রথমে জেলা সদরের ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতাল ও পরে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। অবস্থার অবনতি ঘটলে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার তিন দিনের মাথায় ১৭ ডিসেম্বর আমিনুল হক মারা যান। এ ঘটনায় নিহত অধ্যক্ষের ভাই ফজলুল হক বাদী হয়ে ১৯ ডিসেম্বর চারজনকে আসামি করে হোসেনপুর থানায় মামলা করেন। পুলিশ তদন্ত শেষে ২০১১ সালের ১৮ মে মানিক মিয়া ও তাঁর বাবা নুরুল করিমের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেয়।

রাষ্ট্রপক্ষে এপিপি আবু সাঈদ ইমাম ও আসামিপক্ষে এ কে এম মঞ্জুরুল ইসলাম মামলা পরিচালনা করেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন