আটক দুজন হলেন উখিয়া উপজেলার বালুখালী ১৮ নম্বর রোহিঙ্গা আশ্রয়শিবিরের কে-২ ব্লকের বাসিন্দা মো. নুর কবির (৩০) এবং একই এলাকার ১১ নম্বর রোহিঙ্গা আশ্রয়শিবিরের জে-৩ ব্লকের বাসিন্দা মো. রহিম উল্লাহ (২০)।

পাচারকারীদের একজন নাফ নদীতে ঝাঁপ দিয়ে শূন্যরেখা অতিক্রম করে মিয়ানমারে পালিয়ে যান। বিজিবির স্পিডবোটো ধাওয়া করে দুজনকে আটক করা হয়।

বিজিবি সূত্র জানায়, রোববার রাতে মিয়ানমার থেকে মাদকের একটি বড় চালান বাংলাদেশে পাচারের তথ্য পায় বিজিবি। সেই সূত্র ধরে একটি বিশেষ টহলদল হোয়াইক্যং ঝিমংখালী নাফ নদী-সংলগ্ন এলাকায় অবস্থান নেয়। কিছুক্ষণ পর তিন ব্যক্তি একটি নৌকা নিয়ে শূন্যরেখা অতিক্রম করে বাংলাদেশ সীমান্তে এলে বিজিবি সদস্যরা তাঁদের থামানোর জন্য চ্যালেঞ্জ করেন। এ সময় পাচারকারীদের একজন নাফ নদীতে ঝাঁপ দিয়ে শূন্যরেখা অতিক্রম করে মিয়ানমারে পালিয়ে যান। নজরদারিতে থাকা বিজিবির স্পিডবোটে ওই নৌকা ধাওয়া করে দুজনকে আটক করা হয়। এরপর তাঁদের জিজ্ঞাসাবাদে নৌকার পাটাতনের নিচে থেকে ২ কেজি ৭১ গ্রাম ক্রিস্টাল মেথ ও ১০ হাজার ইয়াবা পাওয়া যায়। জব্দ মাদকের বাজারমূল্য ১০ কোটি ৬৫ লাখ ৭০ হাজার টাকা। জব্দ মাদকসহ আটক ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট আইনে মামলার প্রক্রিয়া চলছে।

টেকনাফ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার (ওসি) দায়িত্ব থাকা পুলিশ পরিদর্শক তদন্ত আবদুল আলীম জানান, ক্রিস্টাল মেথ আইস, ইয়াবাসহ আটক দুজনের বিরুদ্ধে মামলা করার পর তাঁদের আজ সোমবার বিকেলের দিকে কক্সবাজার জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে পাঠানো হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন