মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, ২০১৮ সালের ৭ অক্টোবর সন্ধ্যায় চাঁদপুর শহরের বকুলতলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে জেলা বিএনপি ও জামায়াতের নেতা-কর্মীরা ককটেল বিস্ফোরণ ও রেললাইন ক্ষতিগ্রস্ত করেন। এ সময় পুলিশের ওপর ইটপাটকেল নিক্ষেপের ঘটনাও ঘটে।

গত ১০ এপ্রিল আসামি হিসেবে আদালতে হাজির হলে আদালত তাঁকে কারাগারে পাঠান।

এ ঘটনায় তৎকালীন জেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক বর্তমান জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সলিমুল্লাহ সেলিমসহ ২৫ জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাতনামা আরও ২৫ থেকে ৩০ জনকে আসামি করে নাশকতার মামলা করেন চাঁদপুর মডেল থানা-পুলিশের তৎকালীন উপপরিদর্শক (এসআই) মফিজুল ইসলাম। পরে ওই আসামিরা আদালত থেকে জামিনে মুক্তি পান।

শেখ ফরিদ আহমেদের আইনজীবী মোস্তফা কামাল বলেন, ওই নাশকতার মামলায় প্রথমে বিএনপি নেতা শেখ ফরিদের নাম ছিল না। পরে আসামির তালিকায় তাঁর নাম অন্তর্ভুক্ত করা হয়।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন