বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ডিজেলের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে সারা দেশের মতো ময়মনসিংহেও পরিবহন ধর্মঘট চলছে। আজ সকালে ময়মনসিংহ নগরের পাটগুদাম এলাকায় আন্তজেলা বাস টার্মিনালে দেখা যায়, টার্মিনাল থেকে জেলা বা উপজেলার কোনো বাস ছেড়ে যায়নি। এদিকে নগরের মাসকান্দা ঢাকা বাস টার্মিনাল, আকুয়া এলাকার ফুলবাড়িয়া বাইবাস, ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের দিঘারকান্দা বাইপাস মোড়েও কোনো বাস চলাচল করতে দেখা যায়নি। অধিকাংশ যাত্রীরা অটোরিকশা বা হেঁটে যাতায়াত করছেন। যাত্রীদের বাধ্য হয়ে বাসের চেয়ে কয়েক গুণ বেশি ভাড়ায় সিএনজিচালিত অটোকিশায় করে গন্তব্যে যেতে দেখা গেছে।

আউয়াল হোসেন নামের এক যাত্রী বলেন, তিনি ময়মনসিংহ থেকে নান্দাইল চৌরাস্তা যাওয়ার জন্য বাস টার্মিনালে এসে জানতে পারেন ধর্মঘট চলছে। বিকল্প ছোট যানবাহনগুলোতে অতিরিক্ত ভাড়া নেওয়া হচ্ছে। কিন্তু তাঁর কাছে বেশি টাকা না থাকায় তিনি বিপাকে পড়েছেন বলে জানান। পরে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে বাড়ি থেকে টাকা এনে তিনি অটোরিকশায় করে যাওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

দুপুরে মাসকান্দা টার্মিনালে দেখা যায়, কয়েকজন যাত্রী একটি মাইক্রোবাসের চালকের সঙ্গে ভাড়া নিয়ে দর–কষাকষি করছেন। ময়মনসিংহ থেকে জয়দেবপুর পর্যন্ত মাথাপিছু ৫০০ টাকা ভাড়া দাবি করছেন চালক। এতে মধ্যস্থতা করছেন বাসের কয়েকজন শ্রমিক।

default-image

বাসশ্রমিক নুরুল ইসলাম বলেন, ‘বাস বন্ধ থাকলে আমাদেরও রোজগার বন্ধ থাকে। রোজগার বন্ধ থাকলে আমাদের সংসার চলে না। এ জন্য মধ্যস্থতা করে কিছু রোজগারের চেষ্টা করছি।’

এদিকে পাটগুদাম এলাকায় পরিবহনশ্রমিকেরা জানান, পরিবহন ধর্মঘটের খবরটি অনেকে গতকাল বৃহস্পতিবার রাতে জানতে পেরেছেন। অনেকে আবার আজ সকালে ধর্মঘটের খবর পেয়েছেন। দৈনিক রোজগারের টাকা দিয়ে সংসার চালাতে হয় বলে ধর্মঘট ডাকায় তাঁরাও বিপাকে পড়েছেন। দ্রুত সমস্যার সমাধানের জন্য সরকারের কাছে আহ্বান জানান তাঁরা।

ময়মনসিংহ জেলা পরিবহন মালিক সমিতির সম্পাদক সোমনাথ সাহা বলেন, কেন্দ্রের নির্দেশে এ ধর্মঘট চলছে। হঠাৎ ডিজেলের দাম লিটারপ্রতি ১৫ টাকা বেড়ে যাওয়ায় মালিক ও শ্রমিকদের পক্ষ থেকেই এ ধর্মঘট ডাকা হয়েছে। দাবি আদায়ের আশ্বাস না পাওয়া পর্যন্ত এ ধর্মঘট চলবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন