বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির শিক্ষার্থী সানজিদা মরিয়ম বলে, ‘দেড় বছর পর স্কুলে আসার যে কী আনন্দ, তা বলে বোঝানো যাবে না। স্কুল খোলার ঘোষণার পর থেকেই দিনটির জন্য আমরা অপেক্ষা করছিলাম।’

দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী প্রতিভা সরকার বলে, ‘আনন্দ তো আছেই। তবে অভিভাবক ও স্যাররা বলেছেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। আমরা স্বাস্থ্যবিধি মানতেও সতর্ক আছি।’

সকালে স্কুলের ফটকের সামনে শরীরের তাপমাত্রা মাপার যন্ত্র নিয়ে প্রথমে নিজেই দাঁড়িয়ে পড়েন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নাছিমা আক্তার। পরে অবশ্য বিদ্যালয়ের স্বেচ্ছাসেবীরা এ দায়িত্ব নেয়। শরীরের তাপমাত্রা বেশি, এমন অবশ্য কেউ ছিল না।

default-image

বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক কাজী ফরিদা পারভীন বলেন, ‘১৮ মাস পর শিক্ষার্থীদের চোখের সামনে দেখে কী যে আনন্দ হচ্ছে, তা আসলে ভাষায় প্রকাশ করার মতো নয়। তবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাটা আমাদের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ। এ চ্যালেঞ্জে জয়ী হতে হবে। প্রথম দিনের ক্লাসে আমরা স্বাস্থ্যবিধি বিষয়ে আলোচনা করব।’ আরেক সহকারী শিক্ষক হাফিজা আক্তার বলেন, প্রথম দিন মুখে মাস্ক পরে আসায় অনেক শিক্ষার্থী কিছুটা অপ্রস্তুত হচ্ছে। তবে তারা মাস্ক খুলছে না।

ময়মনসিংহের জিলা স্কুল, প্রিমিয়ার আইডিয়াল স্কুল, মুকুল নিকেতন উচ্চবিদ্যালয় ও কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের হাইস্কুলে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, প্রথম দিন স্বাস্থ্যবিধি পুরোপুরি মেনেই শুরু হয়েছে শিক্ষা কার্যক্রম।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন