বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

পুলিশ জানিয়েছে, গত ২৫ মার্চ সকালে রায়পুরার চরসুবুদ্ধি থেকে পাঁচজন যাত্রী নিয়ে সিএনজিচালিত অটোরিকশাটি আমিরগঞ্জ হয়ে নরসিংদী শহরের আরশীনগরের দিকে যাচ্ছিল। আমিরগঞ্জের সজল ভূঁইয়া এলপিজি ফিলিং স্টেশন অতিক্রমের সময় রায়পুরাগামী একটি পিকআপ ওভারটেক করতে গেলে মুখোমুখি সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষে ঘটনাস্থলেই সিএনজির চালকসহ চারজন নিহত হন। এ সময় গুরুতর আহত হন সিএনজির আরও দুই যাত্রী। দুর্ঘটনার সময় পিকআপচালক রুবেল মিয়া তন্দ্রাচ্ছন্ন ছিলেন।

ঘটনার পরপরই স্থানীয় লোকজন পিকআপটি আটক করলেও চালক পালিয়ে গিয়েছিলেন। রায়পুরা থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে নিহতদের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নরসিংদী সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠায়। পরের দিন নিহতের স্বজনেরা ওই পিকআপচালককে আসামি করে রায়পুরা থানায় একটি মামলা করেন। ওই দুর্ঘটনার ২২ দিন পর পলাতক রুবেল মিয়াকে গ্রেপ্তার করা হলো।

দুর্ঘটনায় নিহত চারজন হলেন অটোরিকশার চালক মো. মাইনুদ্দীন (৩৫), কাইয়ুম মিয়া (১৮), আবদুর রউফ (৬২) ও মনির মিয়া (৩৫)। তাঁদের সবার বাড়ি রায়পুরার চরসুবুদ্ধি ইউনিয়নে।

রায়পুরা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) গোবিন্দ সরকার বলেন, দুপুরে গ্রেপ্তারের পরপরই পিকআপচালক রুবেল মিয়াকে রায়পুরা থানায় নিয়ে আসা হয়। পরে বিকেলেই মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে নরসিংদীর আদালতে পাঠানো হয়। আদালতের বিচারক পরবর্তী শুনানির তারিখ নির্ধারণ করে তাঁকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন