স্থানীয় একাধিক সূত্র জানায়, বিসিকের ঠিক সামনে একটি খাল ছিল। বিসিকের সব বর্জ্য ও বৃষ্টির পানি ওই খালে গিয়ে পড়ত। চার লেন মহাসড়কের জন্য খালটি ভরাট করা হয়েছে। এতে বিসিকের ভেতরে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে। এ অবস্থায় ঈদ মৌসুমের বাড়তি উৎপাদন তো দূরের কথা, নিয়মিত উৎপাদনই করতে পারছে না কারখানাগুলো।

জেলা বিসিক কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ১৯৯৭-৯৮ সালে সদর উপজেলার নন্দনপুরে ২১ দশমিক ৯৮ একর জায়গায় বিসিক শিল্পনগরী গড়ে ওঠে। এতে ১৩৮টি প্লট রয়েছে। সব কটিই বরাদ্দ দেওয়া আছে। অ্যালুমিনিয়াম, সোডিয়াম, সিলিকেট, তেল, সাবান, ময়দা, বিস্কুট কারখানাসহ বিভিন্ন ধরনের ৬৮টি শিল্পপ্রতিষ্ঠান রয়েছে। এসব শিল্পকারখানায় প্রায় সাড়ে তিন হাজার শ্রমিক কাজ করেন।

স্থানীয় প্রশাসন ও এলাকাবাসী জানান, আশুগঞ্জ নদীবন্দর থেকে আখাউড়া স্থলবন্দর পর্যন্ত মহাসড়কটি চার লেনে উন্নীত করছে সড়ক ও জনপথ বিভাগ। এই উন্নয়নকাজের জন্য মহাসড়কসংলগ্ন ছোট একাধিক খাল বালু দিয়ে ভরাট করেছে সড়ক ও জনপথ (সওজ) অধিদপ্তর। সাত-আট দিন আগে বিসিক শিল্পনগরী–সংলগ্ন খালগুলোও ভরাট করা হয়।

ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, পানি ও বর্জ্যনিষ্কাশনের ব্যবস্থা বাধাগ্রস্ত হওয়ায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে। শিল্পনগরীর ভেতরে ৪০টি কারখানায় পানি ঢুকে উৎপাদন বন্ধ রয়েছে।

সুবর্ণ আইসক্রিম ফ্যাক্টরির স্বত্বাধিকারী মো. জাকির হোসেন বলেন, ‘সাত দিন ধরে কারখানার উৎপাদন বন্ধ। প্রতিদিন এক থেকে দেড় লাখ টাকার উৎপাদন হতো। এর একটি স্থায়ী সমাধানের জন্য সরকারসহ সংশ্লিষ্টদের কাছে অনুরোধ করছি।’

চার লেন প্রকল্পের সরাইল বিশ্বরোড মোড় থেকে ধরখাল পর্যন্ত এলাকার প্রকল্প ব্যবস্থাপক খন্দকার গোলাম মোস্তফা। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, ‘বিসিক শিল্পনগরী থেকে রাসায়নিক বর্জ্য বের হয়। বর্জ্য ব্যবস্থাপনার জন্য তাদের নিজস্ব ব্যবস্থাপনা থাকা দরকার। রাসায়নিক বর্জ্য ফেলার জায়গাটি তাদের নির্ধারণ করতে হবে।’

এক সপ্তাহ ধরে নিজের কার্যালয়েও পানি বলে জানিয়েছেন জেলা বিসিক কার্যালয়ের সহকারী মহাব্যবস্থাপক রোকন উদ্দিন। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, ‘বিষয়টি আমাদের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ, জেলা প্রশাসক ও চার লেন প্রকল্পের প্রকৌশলীদের জানিয়েছি। তাঁরা পানি সরে যাওয়ার ব্যবস্থা করে দেবেন বলে জানিয়েছেন।’

সওজের নির্বাহী প্রকৌশলী পঙ্কজ ভৌমিক প্রথম আলোকে বলেন, বিসিকের সামনের জায়গাটি সওজের। বিসিকের জায়গা দখল করা হয়নি। আর পানি ও বর্জ্যনিষ্কাশনের জন্য তাদের স্থায়ী নিজস্ব একটি ব্যবস্থাপনা থাকা দরকার।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন