বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

তেল শেষ হয়ে গেলে কী করেন জানতে চাইলে বিবি কুলসুম বলেন, ‘শাক, আলু সেদ্ধ করতে তেল লাগে নাকি? এক কেজি টমেটোর দাম ১৫ থেকে ২০ টাকা। টমেটো পুড়িয়ে, আলু-শাক সেদ্ধ করে ভাত খাই। তেল লাগে না। কিন্তু মাঝেমধ্যে মেয়েরা ডিমভাজি খেতে চায়। ডালও রান্না করা লাগে। এ কারণে ২০–৪০ টাকার তেল কিনে নিয়ে যাই।’

বহদ্দারহাট খাজা রোডের বাদামতল ডালবাড়ি এলাকায় থাকেন বিবি কুলসুম। বয়স ৩৫ ছুঁই ছুঁই। স্বামী সুমন মিয়া (৪০) রিকশাচালক। সুমন মিয়ার মতিগতির ঠিক নেই। কোনো দিন রিকশা নিয়ে বের হন, কোনো দিন হন না। ঘরে শুয়ে-বসে, আড্ডা দিয়ে সময় কাটান। ঘরে তাঁদের তিন মেয়ে। বাসাভাড়া গুনতে হয় চার হাজার টাকা।

বাধ্য হয়ে সংসারের ঘানি টানতে হয় কুলসুমের। পাঁচজনের সংসার। ইট ভেঙে কুলসুমের আয় হয় ২০০–৩০০ টাকা। তা দিয়েই চলে সংসার। কাজ না থাকলে আবার আয়ও বন্ধ। তিন মেয়ের মধ্যে বড় মেয়ে (১৮) পোশাককর্মী। চাকরি করে পাঁচ থেকে সাত হাজার টাকা হয়। সেখান থেকে কিছু টাকা নিজের জন্য রাখেন। বাকি টাকা মায়ের হাতে তুলে দেন সংসারের খরচের জন্য। মেজ (১৩) ও ছোট (১১) মেয়েকে টাকার অভাবে পড়ালেখা করাতে পারেননি।

default-image

কুলসুম প্রথম আলোকে বলেন, তাঁর জীবনে কষ্টের শেষ নেই। ভালো কিছু মেয়েদের খাওয়াতে পারেন না। ডাল, আলু, ডিম, শাক—এসব নিত্যদিনের খাবারের তালিকায় থাকে। ঈদের সময় ভালো কিছু রান্নার চেষ্টা করেন। কিন্তু টাকাপয়সা থাকে না সব সময়। এ জন্য মাঝেমধ্যে ধারদেনা করতে হয়।

চট্টগ্রামের অসচ্ছল পরিবারগুলোর মধ্যে গত ২০ মার্চ থেকে ভর্তুকি মূল্যে পণ্য বিক্রি শুরু করে সরকারি প্রতিষ্ঠান ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি)। নগরের ৪১টি ওয়ার্ডে পারিবারিক কার্ডের মাধ্যমে তেল, চিনি, মসুর ডাল বিক্রি করা হয়। ৫ লাখ ৩৫ হাজার ৮২টি পরিবার কার্ড পেলেও কুলসুম কার্ড পাননি বলে জানান। কীভাবে কার্ড পাবেন, তা–ও জানেন না। কেউ তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করেননি। এখন যদি একটা কার্ড পান, তাহলে কম দামে তেল কিনতে পারতেন। স্বামী–সন্তানদের নিয়ে একটু পছন্দের খাবার রান্না করতেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন