বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) আরিচা কার্যালয়ের ট্রাফিক পরিদর্শক আফতাব হোসেন বলেন, ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাবে নদীপথ উত্তাল থাকায় গত মঙ্গলবার বিকেল ৫টা থেকে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথে লঞ্চ চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়। আজ পরিস্থিতি অনুকূলে থাকায় দীর্ঘ ৬৫ ঘণ্টা পর সকাল ১০টা থেকে লঞ্চ চালু করা হয়েছে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে যাত্রীদের পারাপার করা হচ্ছে।

শুক্রবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত দৌলতদিয়া ঘাটে অপেক্ষা করে দেখা যায়, ফেরিঘাট থেকে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের বাংলাদেশ হ্যাচারিজ পর্যন্ত তিন কিলোমিটারের বেশি ঢাকামুখী যানবাহন ফেরিতে ওঠার অপেক্ষায় আছে। দৌলতদিয়ার তিনটি ঘাটের মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ ৫ নম্বর ঘাটের মাত্র একটি পকেট চালু আছে। ঝড়ে পন্টুন ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় দুটি পকেট দিয়ে ফেরিতে যানবাহন ওঠানামা বন্ধ আছে। দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে ৫ নম্বর ঘাটের পন্টুন সংস্কারকাজের জন্য সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা ঘাটে পৌঁছান। এদিকে লঞ্চঘাটে দেখা যায়, পাটুরিয়া থেকে আসা প্রতিটি লঞ্চে যাত্রীর চাপ আছে। ঘাটে লঞ্চ ভেড়ামাত্র যাত্রীরা হুড়োহুড়ি করে নামছেন।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন করপোরেশনের (বিআইডব্লিউটিসি) আরিচা কার্যালয়ের সহকারী মহাব্যবস্থাপক (মেরিন) আবদুস সাত্তার বলেন, ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাবে দৌলতদিয়ার ৪ ও ৫ নম্বর ঘাটের পন্টুনের কবজা ভেঙে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ৪ নম্বর ঘাট দিয়ে হালকা যানবাহন ফেরিতে ওঠানামা করছে। ৫ নম্বর ঘাটের পন্টুনের সংস্কারকাজ করতে তিন দিন সময় লাগবে। আপাতত ঘাটের একটি পকেট চালু থাকবে। এসব কারণে যানবাহন পারাপার ব্যাহত হওয়ায় ঘাটে গাড়ির চাপ পড়ছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন